দুই বান্ধবির সাথে Dui Bandhobir Sathe 1

আজ আমি আমার জীবনের আরেকটি ঘটনা আপনাদেরকে বলবো

ঘটনাটা আজ থেকে তিন বছর আগের কথা


আমি একটা প্রাইভেট ভারসিটির ছাত্র ঘটনাটি হইয়েছিল আমি যখন সেমিষ্টার পড়ি অড়থাৎ ইয়েয়ার আমাদের তখন একটা সাবজেক্ট উফার করলো আমরা সবাই নিলাম সাবজেক্ট টা তেমন কিছু না কম্পিউটার কনসেপ্ট ক্লাস ঠিকমত চলতে লাগলো কয়েকটা ক্লাস যাওয়ার পর স্যার আমাদের পাউয়ার পয়েন্ট এর উপর প্রেজেন্টেশন করতে দিলো প্রেজেন্টেশন করতে গ্রুপ করে দিলো প্রত্যেক গ্রুপ তিনজন করে ওহ আমার কি ভাগ্য আমার গ্রুপ পরলো আমাদের ক্লাস এর সবচেয়ে সুন্দরী দুইটা মেয়ে ওরা হলো তন্নী আর মিতু আমাদের ক্লাস মোট মেয়ে সংখ্যা ১৪জন এর মধ্যে ৫জন এর সাথে আমার ভালো বন্ধুত্ত কিন্তু তন্নী আর মিতু আমার তেমন একটা ভালো বন্ধু না যাস্ট হায় হেলো কিন্তু স্যার গ্রুপ করে দিসে কি আর করা তবে আমি মনে মনে একটু খুশিও হয়েছি সুন্দরী দুইটা আমার গ্রুপ পরাতে কিন্তু আমার বন্ধুদের ব্যপারটা বুঝতে দেইনি তাছারা নাম্বারো বেশি পাওয়া যাবে দুজনই মোটামোটি ভালো ছাত্রী স্যার বলে দিলো এখন থেকে গ্রুপ এক সাথে বসতে




শুরু হল ওদের সাথে বন্ধুত্ত তন্নী আর মিতুর বর্ণনা দিয়ে নেই তন্নী মিতুর তলনায় একটু বেশি সুন্দর তন্নীর চেহারাটা একদম আপেল এর মত ফরসা আর ঠোট গুলো গোলাপী রঙ এর চোখ গুলো মায়াবী দেখে মনে হয় এই মেয়ে ভাজা মাছ উলটে খেতে যানে না ওর মধ্যে কেমন জানি একটা ইনোসেন্ট ইনোসেন্ট ভাব ছিল আমাদের ক্লাসতো বটেই পুরা ভারসিটি ওর জন্য পাগল ছিলো ওর শরীরটা ছিল অদ্ভুত একটা আকরষণ কেউ ওকে একবার দেখলে হাঁ করে চেয়ে থাকে আমি ওকে প্রথম যেদিন দেখছিলাম সে দিন আমিও হাঁ করে চেয়ে ছিলাম একটু বেশী স্মারট তাই বেশীর ভাগ দিনই ফতুয়া আর জীন্স পড়ে ভারসিটি আসতো ফতুয়া পরলে ওর বুক গুলা যা লাগে না মামা একদম হট আর মিতুও কম সুন্দরী না কিন্তু তন্নীর থেকে ওর সাস্থটা একটু বেশী কিন্তু ওকে এর জন্য খারাপ লাগে না বরং একদম গুল্টু গুল্টু লাগে মিতুর সব থেকে বেশী সুন্দর ওর চুল গুলা একদম কমোড় পরযন্ত মিতুও ফরসা ওর গাল গুলো সব সময় লাল হইয়ে থাকে দুজনরে একসাথে দেখলে মনে হয় দু পরী আমার সাথে বসে আছে আমি বেশীরভাগ সময় তন্নীর পাশে বসতাম আর তন্নীর পারফিউম এর গন্ধ নিতাম ওহ মামা কি যে গন্ধ পাগল হয়ে যাবেন যাই হোক আমি ক্লাস করতাম আর ওদের দিকে আর চোখে ওদের দুধ মাপার চেষ্টা করতাম তন্নীর গলার উপর দিয়ে দুধের একটু খাচ দেখা যেতো আমি তাতেই অনেক খুশি

যে দিন কম্পিউটার কনসেপ্ট ক্লাস থাকতো সেদিন মনটাই যেনো খুশি খুশি থাকতো স্যার প্রত্যেক গ্রুপ কে বলল প্রেজেন্টেশনটা বিষয় নিরধারন করে স্যারকে দিতে আমরা ক্লাস বসে নিরধারন করতে পারলাম না তাই তিন জনের মোবাইল নাম্বার আদান প্রদান করলাম বললাম সারাদিন চিন্তা করে রাতে কনফারেন্স করে কথা বলবো রাত ১টা বাজে আমার মোবাইলে মিতুর ফোন আসলো ফোন করে বললো তন্নী লাইনে আছে তারপর প্রায় ২০মিনিট কনফারেন্স কথা বলে বিষয় নিরধারন হলোবাংলাদেশের চলচ্চিত্র আমার দায়িত্ব হল নেট থেকে তথ্য কালেকশন করা মিতুর দায়িত্ব হল প্রেজেন্টেশনটা সাজানো আর তন্নীর দায়িত্ব হল পাউয়ার পয়েন্ট এর কাজ করা আমি বসে গেলাম নেট নিয়ে সেদিন রাতে আর যৌবন যাত্রাতে ঢুকা হল না সারারাত গুগোল সারচ করে বেশ কছি তথ্য পেয়ে গেলাম আগামী পরশো ক্লাস ক্লাস গিয়ে স্যারকে বিষয়টি বললাম স্যারও পছন্দো করলো স্যার বললো নেক্সট ক্লাস প্রেজেন্টেশনটা হবে তারাতাড়ি সবাই যাতে প্রেজেন্টেশনটা কমপ্লিট করে ফেলি

ক্লাস শেষে আমরা তিন জন ঠিক করলাম হাতে আছে এক সাপ্তাহ আর প্রেজেন্টেশনটা পাউয়ার পয়েন্ট এর কাজ করতে ২দিন লাগবেই তাই ঠিক করলাম আগামীকাল থেকে তন্নীর বাসায় পাউয়ার পয়েন্ট এর কাজ আরাম্ভ করবো কিন্তু তন্নী বললো কাল থেকে না ৩দিন পর ওর মাম ড্যাট দেশের বাইরে যাবে বাসা খালি থাকবে তখন তিন জনে মিলে স্বাধীন ভাবে কাজ করা যাবে মিতু আবার রাজী হতে চাচ্ছে না ওবলে পাউয়ার পয়েন্ট এর কাজ করতে বাসা খালির কি দরকার তন্নী বললো ওর বাসায় নাকি এখন অনেক মানুষ তাই ঠিক হলো আমরা ৩দিন পরই পাউয়ার পয়েন্ট এর কাজ করবো

২দিন দেখতে দেখতে কেটে গেলো ৩য় দিন রাতে তন্নী আমাকে ফোন দিলো বললো কাল আসছোত? আমি বললাম হুম আসছি আমাদের জন্য খাবার দাবার রেডি রেখো একটা হাসি দিয়ে বললো ঠিক আছে বাবা রেডি রাখবো ওর ফোনটা রেখে আমি মিতুকে ফোন দিলাম মিতুকে বললাম কাল ঠিক ১০টার সময় ভারসিটি থাকতে মিতু বললো তন্নীর বাসা চেনো? আমি বললাম না সকালে আগে ভারসিটি আসো তারপর তন্নীকে ফোন করে বাসার ঠিকানা নেয়া যাবে সকাল ৮টা সময়ই ঘুম থেকে ওঠে পরলাম তারপর গোসল টোসল করে ফিট বাবু হইয়ে নাস্তা করে ঠিক ১০টা ১০মিনিটে ভারসিটি এসে উপস্থিত হলাম এসে দেখি মিতু দাঁড়িয়ে আছে আমি দূ্র থেকেই সরি বলে দিলাম তাই আর কিছুই বললো না আমি আমার মোবাইলটা বের করাতে মিতু বললো তন্নীকে ফোন করে বাসার ঠিকানা নিয়ে নিছে তারপর দুজন রওনা দিলাম তন্নীর বাসা সেগুন বাগিচা ভারসিটি থেকে বের হয়ে রিকসা নিলাম ১০টা সময় এত রৌদ তারপরও মিতু রিকসার হোক ওঠাতে দিলো না রিকসাতে আমার সাথে তেমন কনো কথাও বললো না শুধু একবার বললো সব ইনফোরমেশন এনেছি নাকি আমি বললাম হুম সব পেন ড্রাইভ আসে তারপর ঠিকানা অনুযায়ী তন্নীর বাসা বের করলাম তন্নীর বাসা বিশাল এক এপারমেন্ট ওর বাসা ১১তালালে নিচে সিকুরিটি তন্নীর বাসায় ফোন দিয়ে আমাদের আসার কথা বললো তারপর লিফট দেখিয়ে দিলো ১১তলায় বেল দিলাম দরজা খুললো তন্নী

দরজা খুলে তন্নীকে দেখেই আমার মাথায় মাল ওঠে গেলো ওঠবে না বাই কেনো এত সুন্দরী একটা মেয়ে স্লিপ হাতা কালো গেঞ্জি থ্রী কয়াটার লাল রঙ এর টাইট পেন্ট পরে আছে আমরা বাসায় ঢুকে প্রথমে ড্রইং রুময়ে বসলাম ওদেখি আগে থেকেই আমাদের জন্য নাস্তা রেডি করে রেখেছে আমরা তিন জন নাস্তা খাচ্ছি আর গল্প করছি আমি মাঝেমাঝে ওর বাসাটা দেখতেছি মামা দেখার মত একটা বাসা ওরা যে এত বড়লোক তা আগে বুঝি নাই খাওয়া শেষ হলে তন্নী বললো চল এবার কাজের কথা আসা যাক চলো আমার রুম ওখানে কম্পিউটার আসে ওর ঘরে ঢুকে দেখি এত সুন্দর করে সাজানো ঘর আমি এর আগে কখনো দেখি নাই পুরোটা ঘর নীল নীল আমি তন্নী কে বললাম নীল কি তোমার প্রিয় রঙ বললো হ্যা আমি বললাম নীল আমারো প্রিয় রঙ এদিকে মিতু বলে নীলতো আমারো প্রিয় রঙ তিন জনই হেসে দিলাম তারপর তন্নী ওর কম্পিউটার টা ওপেন করলো কম্পিউটারের দিকে তাকিয়ে আমার মাথায় আবার মাল ওঠে গেলো ডেঙ্কটপ ওয়ালপেপার তন্নী একি ছবি দেখলাম ফান্টাসী কিংডম ওয়াটার কিংডমের মোধ্যে পুরো ভেজা শরীর নিয়ে দাঁড়িয়ে আসে আর গায়ে সাদা রঙ এর টি-শারট শরীর ভেজার কারণে ওর ব্রা টা ওকি দিয়ে আছে আমি বলালাম কবে গেছিলা ফান্টাসী কিংডম বললো গত মাসে

মামা বিশ্বাস করেন আমার সে দিন কনো খারাপ মতলব ছিলো না কিন্তু ওর ছবিটা দেখার পর থেকে আমার মাখা শুধু খারাপ চিন্তা ঘুরঘুর করতে লাগলো খারাপ চিন্তা আসবে নাই বা কেন এত সুন্দর একটা বাসায় দুইটা সুন্দরী মেয়ের সাথে একা বসে আছি তন্নী আমার সাথে ভালো ভাবেই অনেক কাছে এসে কথা বলছে কিন্তু মিতু মনে হয় আমাকে পছন্দ করছে না নাকি এমনই কম কথা বলে আমি আর তন্নী কম্পিউটারের সামনে বসে কাজ করছি আর মিতু খাটে বসে ম্যাগাজিন পরছে হঠাৎ কম্পিউটার উফ হয়ে গেলো তন্নী বললো শীট ম্যান কারেন্ট চলে গেলো আমি বললাম কই কারেন্ট গেছে দেখওনা ফ্যান চলছে বললো ওটা জেনারেটর ওর পি টা নাকি কদিন ধরে নষ্ট হয়ে আছে কারেন্ট না আসা পরযন্ত কম্পিউটার ওপেন হবে না কি আর করা চেয়ার থেকে ওঠে বসে মিতুর কাছে খাটে গিয়ে বসলাম দুজন তন্নী বললো এখন কি করা যায় মাথায় কিছুই আসছে না তন্নী বললো চলো তাস খেলি আমি বললাম ওকে যাও নিয়ে আসো



তন্নী অন্য ঘর থেকে তাস নিয়ে আসলো দুই বান্ধবির সাথে এবার বললো তিন জন কিভাবে খেলবো? পরে আমার মনে হল থ্রী কারড গেইম খেলি ওরা দুজন এক সাথে বলে উঠলো এটা কিভাবে খেলে আমি বললাম ফেসবুক পোকার প্যালেস গেইম টা খেলছো ? তন্নী বললো আমি খেলছি কিন্তু মিতু বললো আমি খেলি নাই পরে দুজন মিলে ওকে বুঝানো আমাম্ভ করলাম (মামা আপনাদের বুঝাতে গেলে অনেক সময় লাগবে) যে প্রতি দান একজন করে উইনার হয় সে সেই বোরড এর সব টাকা নিয়ে যায় মিতু বললো আমি টাকা দিয়ে খেলবো না আচ্ছা আমরা প্রথম এমনি খেলি তারপর - দানের মত খেললাম এর মধ্যে বেশীর ভাগ বোরড মিতুই জিতলো আমি আর তন্নী একবার একবার করে জিতেছি আমি বললাম এভাবে মজা লাগছে না কনো কিছুর বিনিময়ে না খেললে খেলায় সিরিয়াসনেস আসে না ওরাও আমার সাথে একমত হল কিন্তু মিতু বললো টাকার বিনিময়ে খেলবে না

তন্নী দেখি রেগে গিয়ে মিতুকে বললো তাহলে কিসের বিনিময়ে খেলবা তন্নী এই কথা বলাতে আমার মাথায় একটা শয়তানি প্লান আসলো আমি বললাম আসো খেলাটাকে একটু মজা করে খেলি ওরা বললো কিভাবে আমি বললাম বলবো তবে মাইন্ড করতে পারবা না ওরা বললো আচ্ছা ঠিক আছে বলো তারপর আমি বললাম প্রত্যেক দানে যে হারবে সে তার শরীর থেকে একটি করে জামা খুলবে মিতু তন্নীর দিকে তাকালো দেখলো তন্নী এখনো ওর উপর রাগ করে আসে তাই এবার মিতুই আগে বললো আমি রাজি তন্নী কি বলবে বুঝতে পারতেছে না তারপর দেখি তন্নীও বললো আচ্ছা খেলো দেখি তারপর তন্নী হঠাৎ বলে উঠলো না না হবে না আমার শরীরে মাত্র চারটি জিনিস তোমাদের তো আরো বেশি থাকতে পারে আমি বললাম আমার শরীর এত তিনটি কাপড় আমি বললাম আমার তাহলে একটি ভোনাস দান খেলতে পারবো মিতুও বললো ওর শরীরে চারটি কাপড় আসো এবার খেলা শুরু করা যাক আমি খুব এক্সসাইটেড আজ দুজন কে ন্যাংটা করে ছারবো

১ম দানঃ আমি আল্লাহ করে কারড তিনটা হাতে নিলাম দেখলাম অত খারাপ না খেলা যায়,এদিকে কারড পাওয়ার পর থেকে মিতু হাসছে তন্নী চুপ মিতু বললো এবার কারড শো করো তিন জনই কারড শো করলাম প্রথমে মিতুর কারড দেখলাম আয়হায় আমার থেকে

ভালোএবার আমার কারড শো করালাম এবার দেখি তন্নী আমার কারড দেখে

খুশিতে নিজের কারড দেখালো আয় হায় মামা আমি হেরে গেছি আমি পড়ে ছিলাম

একটি পারপেল রঙ এর টি-শারট আমি চুপ করে আছি টি-শারট খুলতেছি না

তন্নী বলে উঠলো this is not fear এরোকম হলে কিন্তু খেলবো না তারাতারি করো আমি কি আর করবো লজ্জা পেয়ে আমার টি-শারটি খুলে ফেললাম মিতু দেখি আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে আমার শরীর এর লোম দাঁড়িয়ে গেলো আমি বললাম এবার আসো পরের দান খেলা যাক



২য় দানঃ আবার তিন জনকে যথারীতি কারড দিলাম আর বললাম কারড শো করতে

আয় হা আল্লাহ কি আমার উপর নারাজ আমি এবারও হেরে গেলাম এখন তো আমার

পেন্ট খুলতে হবে ভাজ্ঞীস আজ আমি একটা মোটামটি বড় সাইজ এর হাফ পেন্ট ফুল পেন্ট

এর ভেতর পরছিলাম তন্নী আমার দিকে তাকালো আর আমি ওকিছু বলার আগেই আমার

জিন্স পেন্টা খুলে ফেললাম আমার এখন লজ্জা লাগছে আমার শরীরে শুধু একটা হাফ

পেন্ট মিতু তো দেখি আমার দিকে তাকাচ্ছে আর হাসছে মনে মনে ভাবছি খেলা

আবিষ্কার করে নিজেই ফেসে গেলাম নাকি চল নেক্সট দান খেলি



৩য় দানঃ এবার আমি একটু খুশি আমার ভালো কারড পরছে মোটামোটে সিওর হলাম

এবার আর আমি হারছি না তাই এবার আমি অনেক খুশি হয়ে বললাম করো করো

মারড শো করো ইয়াহু এবার মিতুর কারড খারাপ পড়ছে আমিতো মহা খুশি কিন্তু

মিতু বলে ওঠলো না না আমি কিছু খলবো না আমি বললাম এটা কিন্তু ঠিক না আমি

কিন্তু ঠিকই খুলছি তন্নীও বলে ওঠলো না মিতু খুলতে হবে এটা এই খেলার রুলস

মিতু একটা সবুজ রঙ এর সেলোয়ার কামিজ পরা খুলতে হলে ওর গলার উপর দিয়ে বের

করতে হবে আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি কখন খুলবে মিতু বললো ঠিক আছে

খুলছি তবে রায়হান তুমি একটু অন্য দিকে তাকাও আমি খুলে নেই পরে এদিকে

তাকিয়ো আমি বলে উঠলাম কেনো কেনো আমি কি পেন্ট খুলেছি অন্য দিকে ঘুরে !

আমি অন্য দিকে তাকাতে পারবো না তারপর দেখলাম মিতু আস্তে আস্তে ওর কামিজ

উপরে ওঠাতে লাগলো আমি হা করে তাকিয়ে রইলাম আস্তে আস্তে ওর সাদা পেট

দেখলাম তারপর আরো উপরে ওর ব্রা এখন দেখতে পাচ্ছি সাদা রঙ এর ব্রা পড়ছে

ওর সাস্থটা একটু লাদুসলুদুস (ভালো) তাই ওর দুধ গুলাও বেশ বড় সাইজের ব্রার

উপর দিয়ে দুদু অনেকখানী উলঙ্গ হইয়ে আসে মামা কি যে সুন্দর দুধ ২এক্স মুভির

মেয়েদের মতো আমি মনে মনে ভাবছি যাক আমার খেলাটা সারথক হইছে আবার তিন

জনকে কারড দিলাম



৪র্থ দানঃ যথারীতি আবার কারড গুলো নিয়ে শো করলাম মামা এবার তন্নী হেরে গেছে

তন্নী হেরে যাওয়ার সাথে সাথে ওর ফরসা মুখটা লাল হয়ে গেছে সবচেয়ে লাল হইছে ওর

কান দুটা ওর কালো টি-শাটটা আস্তে আস্তে উপরে তুলছে ওর নাভিটাতো খুব

সুন্দর একদম গরতে ডুকে আছে আহ এবার ওর ব্রা দেখতে পেলাম কালো রঙ এর ব্রা

ব্রা টা খুব নরম কাপড়ের মনে হচ্ছে বাসাতে পরে তো মনে হয় তার জন্য তাই ওর

দুদুর বোটাটা অনুমান করা যাচ্ছে মামা দুইটা পরীর মত সুন্দরী মেয়ে আমার সামনে ব্রা

পড়ে বসে আসে আর আমার সোনা দাঁড়াবে না তা কি করে হয় আমার সোনা মনে হয়

আজ সাত ইঞ্ছি যায় গায় আট ইঞ্ছি হয়ে গেছে আমি তন্নীর দিকে তাকিয়ে আছি দেখে তন্নী

বিছানা থেকে একটা বালিশ নিয়ে ওর বুক ডাকলো কিন্তু মিতু তা হতে দিলো না

মিতু টান মেরে তন্নীর বুক থেকে বালিশ সরিয়ে দিলো মামা যখন মিতু তন্নীর বুক থেকে

বালিশটা সরালো তখন বালিশের ধাক্কাতে তন্নীর দুধ গুলা নড়ে ওঠলো কি যে সুন্দর মামা

বলে বুঝাতে পারবো না তন্নী বলে উঠলো আসো এবার পড়ের দান খেলি



৫ম দানঃ এবারের কারড গুলা দেখে আমি খুশি হতে পারলাম না দেখা যাক ওদের কি

অবস্থা তিন জন কারড শো করলাম ইস মামা অল্পের জন্য আমি হেরে গেলাম এখন

কি হবে আমি বলে উঠলাম আমারতো একটা ভোনাস চান্স আসে তন্নী কি বদ বলে

উঠলো পেন্ট খুলে হাত দিয়ে ডেকে রাখো মিতুও বলে উঠলো হ্যা হ্যা তাই করো ওরা

তো আর বুঝতে পারতেছে না আমার ওটা তো এখন আর হাত দিয়ে ডেকে রাখা যাবে না

কি যে বিপদ পরলাম তন্নী বলে উঠলো কি হল তাড়াতাড়ি করো কি আর করা

আমি আমার হাফ পেন্ট আস্তে আস্তে নিচে নামাতে থাকলাম দুই সুন্দরী আমার দিকে

তাকিয়ে আছে পেন্ট একটু নামাতে আমার সোনাটা লাফ দিয়ে বের হয়ে গেলো আমি

একহাত দিয়ে কতটুকুই বা ডাকতে পারলাম ওরা দুজন আমার অবস্থা দেখে হেসে

উঠলো আমি যতটুকু পারলাম আমার সোনাটা ডেকে আবার বিছানায় বসলাম আর

বললাম আমি আর কারড বেটে দিতে পারবো না তন্নী তুমি বেটে দাও আমার এই

কথা শুনে ওরা আবার হু হু করে হেসে উঠলো ওদের হাসি দেখে আমার লজ্জা আস্তে আস্তে

কমে যেতে লাগলো



৬ষ্ট দানঃ তারপর তন্নী আমার হাত থেকে কারড গুলো নিয়ে বেটে দিতে লাগলো মিতু

বলে উঠলো একটা কথা বলি ? আমি আর তন্নী বলে উঠলাম বলোমিতু বললো

আমি না কখনো ছেলেদের ওইটা(আমার সোনার দিকে হাত দিয়ে দেখিয়ে) দেখি নাই

তন্নী বলে উঠলো রায়হান কে হারা তারপর দেখিস আমি এই রকম একটা কথা শুনে লজ্জা

পেয়ে গেলাম আর কিছুই বললাম না শুধু একটা মুচকি হাসি দিয়ে আমার কারড দেখলাম

মামা আমার আসলেই সেদিন লাক টাই খারাপ কারড এবারো খারাপ পরসে দেখি

ওদের কি অবস্থা ওহ মামা আবারো অল্পের জন্য হেরে গেলাম এবারতো ওদের হাসি কে

দেখে হাসতে হাসতে একদম বিছানায় গড়াগড়ি দুজন আমি হা হয়ে বসে আছি প্রায়

দু মিনিট ওরা হেসে যাচ্ছে তারপর হুট করে তন্নী উঠে বসলো ওর উঠাতে মিতুও উঠে

বসলো তন্নী বলে উঠলো রায়হান এবার হাতটা সরাও মিতু তোমার ওটা দেখুক মিতুও

আমার দিকে তাকিয়ে আছে তন্নী আবার বলে উঠলো সরাও না রায়হান আমরা দেখি

আমার সোনার দেখার কথা শুনে আমার সোনাবাবাযিতো আমার হাতের ভেতরে লাফালাফি

করতেছে কি করবো আমারো ভেতরে কাম উত্তেজনা শুরু হতে আরাম্ভ করলো দুটা

সুন্দরী মেয়ে আমার সোনা দেখতে চাইতেছে আমি আর লজ্জা ধরে রাখতে পারলাম না

আমার হাতটা সরিয়ে দিলাম আর বললাম দেখো এদিকে সোনাতো যা হয়েছেনা একদম

দাঁড়িয়ে আছে তন্নী বললো মিতু দেখো দেখো রায়হান এর পেনিস দেখো এই বলে মিতু

আর তন্নী আমার সোনার দিকে তাকিয়ে রইলো মামারে আমি আর থাকতে পারতেছিলাম

না ইচ্ছে করতে ছিল ওদের উপরে যাপিয়ে পরি (চলবে)


No comments:

Post a Comment