তালাক 2

(সুপার হিট চটি) 
আরদালী ঃ জজ সাহেবা আদালতে আসছেন…….. আদালতে উপস্থিত সকলে উঠে দাঁড়াবে। জজ সাহেবা এসে তার চেয়ারে বসে-

জজ সাহেবা ঃ অর্ডার অর্ডার। মি. আকাশ মামলার কাজ শুরু করুন।
মি. আকাশ ঃ ইয়োর অনার, আজকের মামলা খুবই জটিল এবং স্পর্সকাতর। কাঠগড়ায় দাড়ানো মি. সুজন আমার মক্কেলা মিসেস পারুলের স্বামী। পারুল ও সুজন দীর্ঘ দিন প্রেম করে বিগত ৪ বৎসর যাবত বিয়ে করেছে। নিজেদের জীবণকে উপভোগ করার জন্য ওরা এখন পর্যন্ত কোন সন্তান নেয়নি। দুজনের দিন কাল বেশ ভালই কাটছিল কিন্তু হঠাৎ কিছুদিন হয় মি. সুজন তার বড় ভাইয়ের ন্ত্রী মিসেস কমলার সাথে পরকীয়া প্রেম শুরু করেছে এবং তারা দুজনের দৈহিক ভাবে মিলিত হয়ে চরম পুলক অনুভব করছে।
 একজন সুন্দরী, শিক্ষিতা ও ধনী নন্দিনীর পক্ষে তা মেনে নেয়া সম্ভব নয়। মিসেস পারুল অনেক চেষ্টা করেও মি. সুজনকে তার ভাবীর মিলন থেকে ছাড়াতে পারেনি তাই শেষ চেষ্টা হিসাবে মাননীয় আদালতের স্বরণাপন্ন হয়েছেন। ইয়োর অনার এই একবিংশ যুগে পরকীয় প্রেম স্বাভাবিক হলেও একজন স্ত্রীর পক্ষে সেটা মেনে নেয়া সম্ভব নয়। তাই এই অপরাধের জন্য মি. সুজনের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করছি ইয়োর অনার। জজ সাহেবা ঃ মিস নদী আপনার কোন বক্তব্য আছে ? মিস নদী ঃ ইয়েস ইয়োর অনার। মি. আকাশ নিজেই স্বীকার করেছেন যে এই একবিংশ যুগে পরকীয় প্রেম স্বাভাবিক ব্যাপার। তবে আমি বিষয়টিকে ওভাবে দেখছি না ইয়োর অনার। আপনি জানেন প্রেম ভালবাসা সবই ঈশ্বরের অপার মহিমা। লোকে বলে স্বর্গ থেকে আসে প্রেম স্বর্গে চলে যায় পৃথিবীতে রেখে যায় শুধু স্মীতি। এই প্রেম কেমন করে হয় ইয়োর অনার। প্রেম ইচ্ছে করে করা যায় না। প্রেম হয়ে যায়। একটি পূর্ণ বয়স্ক ছেলে আর একজন পূর্ণ বয়স্ক মেয়ে যখন একজনকে দেখে আর একজন প্রকৃকিগত মিলনের জন্য আকর্ষণ ফিল করে তখন তারা ধীরে ধীরে একে অপরের কাছে আসে। পরস্পরকে আলিঙ্গন করে। চুমু খায়। তারপর কখন যে কি হয়ে যায় কেউ কিছু টের পায় না ইয়োর অনার। মানব মানবীর এই আকর্ষণ ন্যাচারাল। মি. আকাশ ঃ অবজেকশন ইয়োর অনার। মিস নদী কি বলতে চাচ্ছেন। একটি ছেলে একটি মেয়েকে দেখে জড়িয়ে ধরে চুমু দিবে আর প্রেম হয়ে যাবে ? তাহলে রাস্তাঘাটে তো চলাই দুষ্কর হয়ে পড়বে ইয়োর অনার। মিস নদী ঃ ইয়োর অনার। মি. আকাশ আমার কথার ভুল ব্যাক্ষা দিচ্ছেন। আমি রাস্তা ঘাটের করা বলিনি। বলেছি প্রেম একটি স্বর্গীয় জিনিস। জাকগে সে কথা আমি আদালতে প্রমান করে দেব আমার মক্কেল মি. সুজন পরকীয়া প্রেম করেনি এবং ইচ্ছে করে তার ভাবীর সাথে যৌন মিলন ঘটান নি। ইয়োর অনার আমি এ বিষয়ে মিসেস পারুলকে কিছু কথা জিজ্ঞেস করতে চাই। জজ সাহেবা ঃ করুন। আরদালী ঃ মিসেস পারুল হাজির………..। মিসেস পারুল কাঠগড়ায় এসে দাড়াবে। মিস নদী ঃ মিসেস পারুল আপনারা তো প্রেম করে বিয়ে করেছেন তাইনা ? পারুল ঃ জি হা। মিস নদী ঃ গত চার বছর যাবৎ স্বামীর সাথে চুটিয়ে যৌন মিলন করছেন তাই না? মি. আকাশ ঃ অবজেকশন ইয়োর অনার। একজন বিবাহীতা নারী তার স্বামীর সাথে যৌন মিলন করেছে কিনা এটা কেমন প্রশ্ন ? এসব ফালতু প্রশ্ন করা ঠিক নয় মিস নদী। মিস নদী ঃ এটা কোন ফালতু প্রশ্ন নয় ইয়োর অনার। আমার জানা প্রয়োজন যে নারী তার বিবাহীত ৪ বৎসর স্বামীর সাথে যৌন সম্ভগ করার জন্য বাচ্চা নেই নি সে নারী হঠাৎ করে স্বামীর বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা করে কিভাবে ? জজ সাহেবা ঃ অবজেকশন সাসটেনন। মিস নদী আপনি এগিয়ে যান। মিস নদী ঃ ধন্যবাদ ইয়োর অনার। আচ্ছ মিসেস পারুল আপনি শশুর বাড়ী অর্থাৎ মি. সজনের বাড়ীতে না থেকে বেশীর ভাগ সময় নিজের বাড়ীতে থাকেন কেন ? পারুল ঃ সুজনদের বাড়ীটি খুবই ছোট। মাত্র দুটি বেড রুম। একটি ভাইয়া আর ভাবী থাকে আর একটিতে আমরা। আমি ছোট বেলা হতেই অনেক বড় বাড়ীতে ঘুরে ফিরে অভ্যস্ত। তাই মিস নদী ঃ বুঝতে পেরেছি। আচ্ছা আপনার ভাবী অর্থাৎ সুজন সাহেবের ভাবীর সাথে আপনার সম্পর্ক কেমন ? পারুল ঃ খুব ভাল। ভাবী আমাকে ছোট বোনের মত দেখে। মিস নদী ঃ বাসায় কোন কাজের লোক নেই। আপনার ভাবীই সংসারের সকল কাজ করেন তাই না। পারুল ঃ হ্যা। একটি ঠিকা বেটী আছে। শুধু ঘর ঝাড় দিয়ে মুছে দেয় আর কাপড় কাচে। মিস নদী ঃ আচ্ছা মিসেস পারুল আপনার সাথে আপনার ভাবীর সম্পর্ক খুবই ভাল তাহলে কেন আপনি তার সাথে জড়িয়ে আপনার স্বামীকে ছোট করছেন ? পারুল ঃ ভাবীর কোন দোষ নেই। দোষ আমার স্বামীর। আমি আমার ফিগারকে ঠিক রাখার জন্য ডাইট কন্ট্রোল করি। ফিগারকে স্লীম রাখার জন্য বেয়াম করি। কিন্তু আমার স্বামীর কাছে সেটা পছন্দ নয়। আমার স্নীম শরীর ওর বেশী পছন্দ নয়। ও একটু নাদুস নুদুস বুক পাছা ভারী মেয়ে পছন্দ। আমার ধারণা ভাবীর শরীরটা একটু ভারী আর পাছাটা খুবই আকর্ষনীয়। তাই মিস নদী ঃ নোট ইট ইয়োর অনার। ঠিক আছে আপনি এখন যেতে পারেন। প্রয়োজন হলে আবার একটু কষ্ট দিব। ইয়োর অনার মিসেস পারুলকে দেখলেন তিনি হালকা পাতলা একজন মহিলা। এই হালকা পালতা মেয়ের প্রতি মি. সুজনের তেমন আকর্ষণ নেই। এটা কোন দোষের বিষয় নয়। মি. সুজন অনেকবার তাকে একটু মোট তাজা হতে অনুরোধ করেছে কিন্তু মিসেস পারুল তা শোনেন নি। আর মিসেস পারুল বড় লোকের একমাত্র মেয়ে হওয়াতে সংসারের কাজও তেমন করতে পারেন না। তাই তিনি নিজের মায়ের বাড়ীতে থাকতে পছন্দ করেন। মি. সুজনকে বেশীর ভাগ সময় তার ভাবীর তত্তাবধানে থাকতে হয়। ভাবী একজন সুন্দরী মহিলা যার বুক ও পাছা দেখার মত। তাই যদি মি. সুজন ভাবীর প্রতি আকৃষ্ট হয়ে একটু আধটু যৌন মিলন করে থাকে তাহলে তাকে দোষ দেয়া যায় না ইয়োর অনার। মি. আকাশ ঃ অবজেকশন ইয়োর অনার। মিস নদী এটা কি বলছেন। ইয়োর অনার আপনি জানেন সারা পৃথিবীতে স্লীম ফিগারের কি মূল্য। যত মডেল, নায়ীকা এবং সেলেব্রীটি আছে সবাই স্লীম ফিগারের হয়ে থাকে। তাছাড়া স্লীম ফিগারের মেয়েরা সাধারণতঃ খুব সেঙ্ক্সি হয় ইয়োর অনার। আপনি জানেন এই সেক্সি হওয়ার পেছনে সাইনটিফিক ব্যাখ্যাও আছে। একজন স্লীম ফিগারের মেয়ের যৌনাঙ্গ হালকা পাতলা হয়। আর একজন নাদুস নুদুস মেয়ের যৌনাঙ্গ প্রচুর মাংশ দ্বরা আবৃত থাকে। একটি পুরুষাঙ্গ যখন ঐ মাংসাল যৌনাঙ্গে প্রবেশ করে তখন পিচ্ছিল রাস্তায় আর নরম মাংসের মধ্যে কোথা ঢুকলো কিছুই বুঝতে পারা যায় না। কিন্তু পক্ষান্তরে একজন স্লীম মেয়ের যৌনাঙ্গ সামান্য মাংস দিয়ে ঘেরা থাকে। একটি পুরুষাঙ্গ যখন ঐ যৌনাঙ্গর মধ্যে প্রবেশ কর তখন যৌনাঙ্গর দেয়ালে গিয়ে পুরুষাঙ্গটি বাড়ী খায়। এভাবে যখন বার বার একটি পুরুষাঙ্গ মেয়ে যৌনাঙ্গের ভিতর যাতায়াত করে এবং যৌনাঙ্গের দেয়ালে ডাইরেক্ট হিট করে তখন ঐ মেয়ে এবং ছেলে চরম উত্তেজিত হতে থাকে। একজন স্বাস্থ্যবতী মহিলার যৌনাঙ্গের ফুটা খুজে পেতে কষ্ট হয়। কারণ সাধারণ ভাবে মাংসের চাপে বন্ধ হয়ে থাকে। কিন্তু একজন স্লীম মহিলার দু পা ফাক করলেই যৌনাঙ্গের ফুটা আপনি স্পষ্ট দেখতে পাবেন। এভাবে যখন দুজনের উঠানামা করতে থাকে তখন ডাইরেক্ট হিট করার ফলে চরম উত্তেজিত হয়ে দুজনেই চরম তৃপ্তি অনুভব করে। তাই একজন স্লীম মেয়ে দেখে পুরুষ মানুষ উত্তজিত হবে না এটা ঠিক নয়। মিস নদী ঃ আপনি কি বলতে চান মিসেস পারুলের মত একজন মহিলাকে দেখে যেকোন পুরুষ উত্তেজিত হবে ? মি. আকাশ ঃ অবশ্যই। মিস নদী ঃ আপনি মিথ্যে কথা বলছেন মি. আকাশ। এই বলে এগিয়ে গিয়ে আকাশের পেন্টের উপর দিয়ে জিনিসটিতে হাত দিয়ে বলে- ইয়োর অনার, মি. আকাশের শিশটি এখুন ঘুমিয়ে আছে। সত্যি যদি উত্তেজনা ফিক করতেন তবে এতোক্ষণ ওটা ছটফট করার কথা। আদালতের সকলে হেসে উঠে। জজ সাহেবা ঃ অর্ডার অর্ডার। মিস নদী এভাবে একজন পুরুষের জিনিসে হাত দেয়া ঠিক নয়। মিস নদী ঃ আমি দুঃখিত ইয়োর অনার। আমি বুঝাতে চেয়েছিলাম একজন স্লীম মহিলাকে দেখে কোন পুরুষের উত্তেজানা আসে না। মি. সুজন ঃ ইয়োর অনার আমি কিছু বলতে চাই। জজ সাহেবা ঃ ও.কে মি. সুজন আপনি বলুন। মি. সুজন ঃ ইয়োর অনার। আমি পারুলকে যখন পছন্দ করে ভাল বেসেছিলাম তখন ও এতো স্লীম ছিল না। হিন্দি সিরিয়াল দেখে দেখে ও ডাইট কন্ট্রোল করা শুরু করে এখন একেবারে পাতলা হয়ে গেছে। তাছাড়া সে বেশীর ভাগ সময় তার বাবার বাড়ী থাকে। আমাকে আমার বাসায় একাকী সময় কাটাতে হয়। একদিনের ঘটনা- আমার ভাইয়া সকাল আটটার মধ্যে নাস্তা করে অফিসে চলে যান। আমি একটু পরে উঠি। আমার ভাবী আমার জন্য নাস্তা আর ফ্যাস্কে চা রেখে সংসারের অন্যান্য কাজ করে। ঐ দিন আমি ঘুমথেকে উঠে গোসল সেরে ডাইনিং এ বসে নাস্তা করে মাত্র চাতে চুমুক দিয়েছি। তখন দেখি আমার ভাবী মাত্র স্নান সেরে ভিজা চুলে ব্রা, ব্লাউজ আর পেটিকোট ছাড়া শুধু একটি পাতলা সুতির শাড়ী পড়ে ডাইনিংএ এলেন। আমাকে জিজ্ঞেস করলেন আর কিছু লাগবে নাকী। আমি ভাবীর দিকে অপলোক দৃষ্টিতে চেয়ে ছিলাম। ভাবীর সেদিকে লক্ষ্য ছিল না। সে স্বাভাবিক ভাবে আমার সামনে দিয়ে হেটে হেটে চুল ঝাড়ছিল। চুলের পানি পিঠ গড়িয়ে মাজায় পরে পেছিয়ে রাখা শাড়ীটি ভিজে শরীরের সাথে লেপ্টে গিয়েছির। তাতে করে ভাবীর অস্বাভাবিক সুন্দর পাছাটি স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। এমন কি পাছার দুভাগ হওয়ার জায়গাটি অসম্ভব সুন্দর লাগছিল। ৩৮ সাইজের ব্রেষ্টটি শাড়ী দিয়ে পেচিয়ে রাখলেও শাড়ীর ভিতর হতে নিপলটি পর্যন্ত দেখা যাচ্ছিল। হাত দিয়ে তখন চুল ঝাড়ছিলেন তখন বোগলের কালো চিকচিকে লোম গুলো দেখে আমার মাথা আর কাজ করছিল না। আমি ষ্টেচুর মত হা করে ভাবীর দিকে তাকিয়ে ছিলাম। দেখলাম ভাবী ওনার শোবার ঘরে ঢুকলেন। আমি মন্ত্রমুগ্ধের মত ওনার পিছন পিছন ওনার ঘরে ঢুকে দিখে ভাবীর পরনের শাড়ীটি মেঝেতে লুটিয়ে আছে। ভাবী সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে আয়নার সামনে দাড়িয়ে ওনা ব্রেষ্ট দেখছেন। আমি আমার লুঙ্গীর গিট খুলে দিয়ে ধীরে ধীরে এগিয়ে গিয়ে ভাবীর পিছনে দাড়িয়ে ওনার দু বোগলের নিচ দিয়ে দু হাত ঢুকিয়ে ওনা ব্রেষ্ট দুটি ধরলাম। ভাবী চমকে উঠে ঘাড় ঘুরিয়ে আমার দিকে একবার তাকালেন। আমি ওনার ঠোটে চুমু দিলাম। কোন কথা না বলে দুজন দুজনার মধ্যে হারিয়ে গেলাম। আমার শিশটা ততক্ষনে ভাবীর বিশাল পাছার ভাজে ঢুকে গেছে। কিছুক্ষণ জড়াজড়ির পর ভাবীকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে দুপা ফাক করে দেখার চেষ্টা করলাম ওনার যৌনাঙ্গটি কেমন। অবিশ্বস্যরমক সুন্দর একটি যুনি। বেশীক্ষণ থাকা সম্ভব ছিল না। তাই ভাবীর যৌনাঙ্গে যোয়ারের উচ্ছাস আসার আগেই আমার শিশটি ঢুকিয়ে দিলাম। কতক্ষন মাজা উঠা নামা করছিলাম মনে ইয়োর অনার। তবে যখন বুঝতে পারলাম তখন আমাদের দজনের যোয়ারের পানিতে ভাবীর দুকুল ছাপিয়ে বাহিরে ঝড়ে পড়তে থাকল। অনেক্ষণ ভাবীর বুকে মাথারেখে কাটালাম। তারপর উঠে অফিসে চলে গেলাম। তারপর মাঝে মাঝে আমরা যৌন তাড়না উঠলেই দুজনে মিলিত হতাম। ভাবী আমাকে পাগল করে ফেলতো। ইয়োর অনার আমি ইচ্ছে করে ভাবীর সাথে মিলন করতে যাইনি হয়ে গেছে। মিস নদী ঃ ইয়োর অনার আপনি মি. সুজনের কথা শুনলেন। এবার আমি মি. সুজনের ভাবী মিসেস কমলাকে কিছু জিজ্ঞেস করতে চাই। জজ সাহেবা ঃ প্রসিড। খানসামা ঃ মিসেস কমলা হাজির .. কমলা ঃ যাহা বলিব সত্যি বলিব, সত্যি বই মিথ্যে বলিব না। মিস নদী ঃ মিসেস কমলা আপনি একটু নিচে আমাদের সামনে আসুন। কমলা কাঠগড়া থেকে নেমে উকিল সাহেবার সামনে আসলেই ওনাকে পিছন ফিরিয়ে ওনার পেটিকোট সহ শাড়ীটি উঠিয়ে বলল- ইয়োর অনার আপনি দেখুন মিসেস কমলার পাছাটি। আদালতের সকলে হা করে মিসেস কমলার পাছার দিকে তাকিয়ে দেখলো আর গুঞ্জন শুরু হলো। জজ সাহেবা ঃ অর্ডার অর্ডার। মিস নদী এ আপনি কি করছেন। মিসেস কমলার পাছাটি ঢেকে ফেলেন। মিস নদী ঃ এই কাজের জন্য আমি ক্ষমা প্রাথনা করছি ইয়োর অনার। আপনি যদি অনুমোতি দেন তবে আমি প্রমান করতে চাই এই পাছা দেখে পুরুষ মানুষের কি হয়। জজ সাহেবা ঃ অনুমোতি দিলাম। মিস নদী ঃ হঠাৎ করে মি. আকাশের কাছে গিয়ে ওর প্যান্টের চেন খুলে শক্ত হওয়া শিশটি বের করে বলে- ইয়োর অনার এই দেখেন আগে এতো সেক্সের কথা বলার পরও ওনার ওটা ঘুমিয়ে ছিল কিন্তু মিসেস কমলার পাছা দেখার সাথে সাথে ওনার শিশটি কেমন লাফাচ্ছে। আদালতের সবাই হাততালি দিয়ে উঠে। জজ সাহেবা ঃ অর্ডার অর্ডার। আমি বুঝতে পেরেছি। আপনাদের সকলের আর্গুমেন্ট ও আলোচনার প্রেক্ষিতে আদালত এই সিদ্ধান্তে উপনিত হয়েছে যে, মিসেস কমলার মত বুক ও পাছার অধিকারী কোন মহিলাকে ভেজা শাড়ীতে এবং পরে উলঙ্গ অবস্থায় দেখে কোন পুরুষ মানুষ ঠিক থাকতে পারে না। সে মতে মি. সুজন ইচ্ছে করে নয় প্রাকৃতিক নিয়মেই যৌন মিলনে আবন্ধ হয়েছে। তাই মি. সুজনকে বেকসুর খালাশ দেয়া হলো। আদালতের সকলে হাততালি দিয়ে উঠলো। অর্ডার অর্ডার। তবে একটি কথা এই সাথে মিসেস পারুলকে নির্দেশ দেয়া হলো যে, সে যেন খুব তাড়াতাড়ী ডাইট কন্ট্রোল ছেড়ে আরও একটু মোট হওয়ার ব্যবস্থা নেয় এবং বাবার বাড়ী ছেড়ে মি. সুজনের বাড়ীতে এসে সার্বনিক সেখানে অবস্থান করে। আর মি. সুজনকে নির্দেশ দেয়া গেল যে, সে যেন মাঝে মাঝে মিসেস পারুলকে উপরে উঠিয়ে যতক্ষণ তার তৃপ্তির রস না খসবে ততক্ষণ তার শিশটি দন্ডায়মান করে রাখে এবং পারুলকে উপরে উঠিয়ে করতে বলে। আজকের মত আদালত এখানেই সমাপ্ত। জজ সাহেবা উঠে দাড়াবে।মি. আকাশ ঃ ইয়োর অনার মিস নদী আমার শিশটি যেভাবে দন্ডায়মান করেছে এটা শান্ত না হলে আমি বাহিরে বের হতে পারবো না। জজ সাহেবা ঃ মিস নদী আপনি মি. আকাশের শিশটি শান্ত করার ব্যবস্থা করেন। মিস নদী ঃ ইয়েস ইয়োর অনার। নদী মি. আকাশের কাছে গিয়ে ওর শিশটি নিজের মুখে পুরে চুশতে লাগলো। (চলবে)


No comments:

Post a Comment