জীবনের সুখের জন্য 20

বিদিশা বলল, ‘কিন্তু তুমি ওকে নিয়ে কি করবে?’
আমি বললাম, ‘আগে তো কথা বলে দেখি।

বিদিশা উত্তর দিলো, ‘ঠিক দ্যাখো কথা বলে। তোমাকেও বলছি বকো না আবার।
আমি বললাম, ‘না না বকার কি আছে। ডাকছি ওকে।আমি ঘুরে দাঁড়াতেই চিত্ত একেবারে আমার মুখোমুখি, পালাতে পারল না। আমি ওকে ভিতরে ডাকলাম, ও চাপা পায়ে ঢুকে এলো ভিতরে। মুখে হাত চাপা। আমি বললাম, ‘কি করছিলি তুই দরজার পিছনে দাঁড়িয়ে?’
চিত্ত কোন জবাব দিলো না, মুখে তখনো হাত কিন্তু দেহটা ফুলে ফুলে উঠছে। আমার সন্দেহ হোল ও কি কাঁদছে নাকি? আমি ওকে কাছে টেনে আনলাম, জোর করে মুখ থেকে হাত সরিয়ে দিলাম। ঠিক যা ধরেছি তাই, ও তো কাঁদছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘কিরে তুই কাঁদছিস কেন? কি হয়েছে?’
চিত্ত কাঁদতে কাঁদতে মেঝের উপর বসে পড়লো আমার কোলে মুখ গুঁজে। বিদিশা ওর কান্না শুনে বসে পড়লো বিছানার উপর। আমার দিকে জিজ্ঞাসু দৃষ্টি নিয়ে তাকাল। আমি ওকে আশ্বস্ত করলাম হাত নাড়িয়ে। চিত্তকে টেনে তুললাম ওপরে, ওর চিবুকটা ধরে বললাম, ‘চিত্ত কি হয়েছে বল আমাকে।
কাঁদতে কাঁদতে ও বলল মেঝের দিকে তাকিয়ে, ‘বৌদি আমাকে দিয়ে গা হাত পা টেপায় না। তুমি অতো দূর থেকে এসেছ তোমাকে দিয়ে গা টেপাচ্ছে। আমাকে বিশ্বাস করে না বৌদি। আমি খারাপ।বলে আবার হু হু করে কেঁদে উঠলো।
আমি বললাম, ‘আরে আমি তো বৌদির বর। আমি টিপব না?’
চিত্ত মাথা নাড়িয়ে বলল, ‘টিপবে না কেন। আমাকে কেন বৌদি না বলবে? আমাকে বৌদি তারমানে পছন্দ করে না। আমাকে পর ভাবে। জিজ্ঞেস করো বৌদিকে কতবার বলেছি দেবো গা টিপে। ততবার বৌদি না করেছে।
এবার বিদিশা আর থাকতে পারল না। চিত্তকে টেনে নিল নিজের বুকের উপর, বলল, ‘তুই কি পাগল হয়ে গেছিস নাকি? আমি তোকে খারাপ, পর এসব ভাবব। জিজ্ঞেস কর তোর দাদাকে তোর সম্বন্ধে কতো প্রশংশা করেছি তোর দাদার কাছে। তুই আছিস বলে কতো উপকার হয়েছে আমার। আর আমি তোকে খারাপ ভাবব?’
চিত্ত বিদিশার দিকে তাকিয়ে বলল, ‘তাহলে কেন আমাকে দিয়ে গা টেপাও নি, কেন দাদাকে দিয়ে টেপালে। আমাকে ভালোবাসো না বলেই তো।
বিদিশা ওর মুখে হাত বুলিয়ে আঙুল দিয়ে চোখের জল মুছিয়ে বলল, ‘আরে তোর দাদা এলে তো এমনি এমনি টেপে। আমাকে খুব ভালবাসে না, তাই।
চিত্ত বলল, ‘তাহলে তখন যে বললে সারাদিন কাজ করার পর মনে হয় যদি কেউ টিপে দিত তাহলে আরাম পেতে। আমাকে কেন বলতে না, আমি চাইলে কেন না করতে?’
বিদিশা যুক্তি দেখাতে চাইল, ‘আরে তুই ছোট না তাই মনে হয় না বলতাম।
চিত্ত বলল, ‘মিথ্যে কথা। তুমি আমাকে বলেছ তুই অনেক বড় হয়ে গেছিস। তাহলে?’
বিদিশা পারল না, বলল, ‘ঠিক আছে বাবা আমি হেরে গেছি। তুই এবার থেকে আমার গা টিপে দিস। হোল?’
চিত্ত হাসল, বলল, ‘এবার থেকে না এখন থেকে।
বিদিশা আমার দিকে তাকাল, আমি মাথা নেড়ে সায় দিলাম। তখন ও বলল, ‘আচ্ছা এখন থেকে।
চিত্ত বিদিশার গলা জড়িয়ে ধরল। বিদিশা বলল, ‘টিপবি যখন টেপ, কিন্তু একবার দেখে আয় দরজাগুলো বন্ধ কিনা।
গো-ও-ল। আমি গোল দিয়ে ফেলেছি। আমি স্পষ্ট বুঝতে পারছি আমার আরেকটা স্বপ্ন পূর্ণ হতে চলেছে।
চিত্ত বিদিশাকে ছেড়ে বেরিয়ে গেল। ও আমার দিকে ঘুরে বলল, ‘গৌতম, চিত্ত যতই হোক পুরুষ। ওর টেপার সময় আমার যদি কিছু হয় মানে আমি যদি উত্তেজিত হয়ে পড়ি তাহলে?’
আমি বললাম, ‘ভেব না এখন। মন যেটা চাইবে সেটাই করো। ঘরের মধ্যেই তো। ভয় পাবার কি আছে।
বিদিশা আবার জিজ্ঞেস করলো, ‘গৌতম আমরা কোন পাপ করছি না তো?
আমি উত্তর দিলাম, ‘এতে পাপের কি আছে। আমার একটাই কথা জীবনের সুখের জন্য যা দরকার তাই করা উচিত। আমি তাই করছি, তুমি তাই করছ মিতাও সেটাই করছে। তুমি যখন আমার কাছে এসেছিলে তখন আমি তোমার কাছে এক অজানা পুরুষই ছিলাম। এবার বোলো তো সেই ঘটনা মাথায় রেখে মনে হয় কি যে আমরা পাপ করেছি। মনে হয় না এই সুখটা পাবার ছিল। এতদিন হারিয়েছিল আজ পেয়েছি। মন খুশি, আত্মা খুশি। যদি পাপ বোলো তো পাপ আর যদি সুখ বলতো সুখ।
বিদিশা কোন কথা না বলে শুয়ে পড়লো। তারপর বলল, ‘তুমি ঠিকই বলেছ। সমাজের পাপ পুন্যর কথা ভেবে আমরা নিজের সুখ অনেকসময় বিসর্জন দিয়ে দিই।
আমি উঠে ওর মাথার পাশে আধশোয়া হয়ে বসলাম কারন চিত্ত ওর পা হাত টিপবে। আমার লিঙ্গ ব্যাপারটা ভেবে উত্তেজিত হয়ে গেছে। শাড়ি ভেদ করে বেরিয়ে পরতে চাইছে। আমি একটু ট্যারা হয়ে বসলাম যাতে ও ঠিক থাকে।
চিত্ত ঘরে ঢুকল। ও ঢোকার সাথে সাথে বিদিশা বলল খুব আস্তে আস্তে, ‘তুমি দেখ প্লিস।
আমি ওর মাথায় টোকা দিয়ে বললাম, ‘আমার উপর বিশ্বাস রেখ।
চিত্ত এসে দাঁড়ালো বিছানার সামনে। বিদিশার গাউন হাঁটুর উপর নামানো। আমি চিত্তকে বললাম, ‘কি হোল দাঁড়িয়ে রইলি কেন, বস।
চিত্ত মেঝের উপর বসতে গেল। আমি বললাম, ‘তুই কি ওখানে বসে বৌদির গা টিপবি।
বিদিশাকে দেখলাম হাসতে। তার মানে এখনো ব্যাপারটা ঠিক আছে। চিত্ত মেঝের থেকে উঠে বিদিশার পায়ের কাছে বসল।
আমি বললাম, ‘ঠিক আছে, এবার টেপা শুরু কর। এতো যে টিপবি টিপবি বলছিলি দেখি তুই কেমন টিপতে পারিস।
চিত্ত বলল, ‘হ্যাঁগো আমি পারি টিপতে।
আমি হেসে বললাম, ‘তাহলে বসে রইলি কেন, শুরু কর।
চিত্ত কাঁপা কাঁপা হাতে বিদিশার পায়ের উপর হাত রাখল। আমি ইয়ার্কি করার জন্য বললাম, ‘ওই দ্যাখো ছেলে তো কাঁপছে এখন থেকে। ও কি টিপবে তোমাকে।
চিত্ত আমার দিকে তাকাল। বিদিশা ওকে বাঁচাবার জন্য বলল, ‘আরে তুমি তো ওর পিছনে পরে আছো। ওকে একটু ধাতস্থ হতে দাও।
চিত্ত বলল, ‘দ্যাখো না বৌদি দাদাকে, যা তা বলছে।
বিদিশা বলল, ‘তুই ওরকমভাবে বসে থাকলে দাদা তোর সাথে মজা করবে। তার থেকে তুই টেপা শুরু কর।
চিত্ত আমার দিকে তাকিয়ে মিতার পা টেপা শুরু করলো। পায়ের আঙুলগুলো ঘুড়িয়ে ঘুড়িয়ে আরাম দিতে লাগলো বিদিশাকে। তারপরে হাত দিয়ে গাউনের উপর দিয়ে ওর পা টিপতে লাগলো। আমি কিছুক্ষণ দেখলাম। বিদিশা আমার দিকে মুখ ঘুড়িয়ে আছে। আমি চিত্তকে বললাম, ‘বোকা, গাউনের উপর দিয়ে টিপলে কি বৌদি আরাম পাবে? গাউনটা সরিয়ে টেপ।
বিদিশা বলল, ‘করছে করতে দাও না। গাউন সরাবার কি দরকার?’
আমি বিদিশাকে বললাম, ‘আরে ওকি ডিউটি করছে নাকি? ও তো তোমাকে আরাম দেবার জন্য টিপছে।
বিদিশা উত্তর দিলো, ‘হ্যাঁ আমি ওতেই আরাম পাচ্ছি।
আমি জবাব দিলাম, ‘বাজে কথা বোলো না তো। কি হোল চিত্ত সরা কাপড়টা।
চিত্ত গাউনটা ফাঁক করে পাটা বার করলো। গাউনটার একটা সাইড ফাঁক করতেই বিদিশার ভরাট থাই বেরিয়ে পড়লো প্রায় কোমর পর্যন্ত। বিদিশা ওর একটা হাত নিয়ে ওর যোনীর কাছে গাউন ঢাকা আছে কিনা চেক করলো আর বলল, ‘আরে ও তো আমাকে প্রায় নগ্ন করে দেবে। তুমি কিছু বোলো।
আমি ঝুঁকে ওকে বললাম, ‘হলেই বা। যা দেখবার তা দেখবেই। তুমি আরাম করো।
ও প্রায় ফিসিফিসিয়ে বলল, ‘আমি জানি না বাবা তুমি কি করতে চলেছ।
এদিকে চিত্ত ওর থাইয়ে মালিশ করতে লেগেছে। হাঁটু থেকে প্রায় কোমর পর্যন্ত। ছোট ছোট হাত দিয়ে মাংসের উপর আঙুল দিয়ে দাবিয়ে যাচ্ছে। ওর কায়দা দেখে মনে হচ্ছে ও জানে মালিশ করতে। আমি আবার বিদিশাকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘আরাম লাগছে?’
বিদিশা আমার দেহে মুখ ঢুকিয়ে বলল, ‘আরাম তো লাগছে কিন্তু ঠিক নিতে পারছি না। কেমন বাঁধো বাঁধো লাগছে।
আমি ওর মুখটা আমার দিকে ঘুড়িয়ে বললাম, ‘এই যে তখন বললাম জীবনের সুখের জন্য যেটাই নেবে মন খুলে নেবে। তাহলে পাপ পুন্য বোধ থাকবে না।
বিদিশা হাসল আর চোখ বন্ধ করে দিলো। আমি ওর বুকের খোলা অংশে ওর বেরিয়ে থাকা সুডৌল স্তনের খাঁজে আস্তে আস্তে হাত বোলাতে লাগলাম।
ওদিকে চিত্ত ওর থাইকে আরও বেশি মালিশ করার জন্য নিজের দিকে টেনে নেওয়াতে বিদিশার গাউন অনেকখানি ফাঁক হয়ে গেছে। আমি দেখছি ওর লোমভর্তি যোনী উন্মুক্ত। বিদিশা জানে না কিংবা জেনে কিছু করছে না। ওর চোখ বোঝা। চিত্তর নজর বিদিশার থাইয়ের দিকে আর আমার নজর আমার স্বপ্ন বাস্তব হচ্ছে তার দিকে।
বিদিশা চোখ বুঝে আমাকে অস্ফুস্ট স্বরে বলল, ‘ও জানে মালিশ করতে। পেশিগুলো সব রিলাক্স হচ্ছে, খুব ভালো লাগছে।
আমি ওর গাউনের ভিতর হাত ঢুকিয়ে ওর স্তনের উপর হাত রেখে বললাম, ‘আমি যেটা করি সেটা ভালর জন্য করি ডার্লিং। তুমি শুধু শুধু আমাকে বোলো।
বিদিশা ওর হাত স্তনে রাখা আমার হাতের উপর রেখে আস্তে করে চাপ দিয়ে বলল, ‘সরি আমার সোনা।একবার চোখ খুলে আমার দিকে তাকিয়ে হেসে আবার চোখ বন্ধ করলো।
চিত্ত বিদিশার কুঁচকির কাছে ওর থাই মালিশ করছে। বিদিশার লজ্জা ধীরে ধীরে কাটছে বুঝলাম যখন বিদিশা ওর পা চিত্তর কোলের উপর তুলে দিলো আর ওর গাউন দুদিকে ফাঁক হয়ে গেল। চিত্ত এখন খুব পরিস্কার ওর যোনী দেখতে পাচ্ছে। ওর হাত কখনো কখনো যোনীর চুল ছুঁয়ে যাচ্ছে। এদিকে আমি বিদিশার স্তন টিপে চলেছি। আমি জানি এখন যা হবে তাতে আর সংকোচ থাকবে না কারোর তরফে। ওর স্তনাগ্র দুই আঙুলে ধরে ঘোরাতে শুরু করলাম, টিপতে থাকলাম, নখ দিয়ে আঁচর কাটতে থাকলাম। বিদিশা একটা গভীর নিঃশ্বাস ফেলে ওর বুককে আমার হাতের দিকে তুলে ধরল। একটু পরেই আমি ওর স্তন চুষব তার আগে ও আরেকটু উত্তেজিত হোক। আমার লিঙ্গ বুঝতে পেরেছে শাড়ির নিচ দিয়ে বাইরের পৃথিবীতে কি দারুন কর্ম চলেছে। সে বাঁধা ছেড়ে বেরিয়ে পরতে চাইছে সেই পৃথিবীতে যেখানে সেও আনন্দ নিতে পারে। কিন্তু ওকে মুক্ত করার সময় যে এখনো আসে নি।
চিত্ত ওর অন্য পায়ের থাই মালিশ করছে। তার জন্য ওর হাত কনুই থেকে থেকে চাপ দিয়ে যাচ্ছে বিদিশার যোনীর উপর। একবার চিত্ত ওর যোনীর উপর হাতের চেটো রাখতেই বিদিশা ওর পাছা কিছুটা তুলে সেই চাপ আরেকটু বাড়িয়ে নিল। তারমানে ও এখন অন্য জগতে বিচরন করছে। এই বাস্তব পৃথিবী ওর কল্পনা থেকে অনেকদুর সরে এসেছে। এখন শুধু আদিম খেলা।
আমি ওর গাউন স্তনের উপর থেকে সরিয়ে দিলাম। ওর ভরাট ফর্সা স্তন প্রকাশ পেল। শুয়ে থাকলেও ওর স্তন দুটো যেন গর্বিত ভাবে উঁচু হয়ে নিজেদেরকে জাহির করছে। স্তনাগ্র শক্ত আর খাঁড়া। আমি মুখ নিচে নামাতে নামাতে দেখলাম চিত্ত এখন মালিশ করছে না ও শুধু হাত বুলিয়ে চলেছে আর ওর নজর বিদিশার স্তনের উপর আটকে গেছে।
আমি মুখ নামিয়ে আনলাম আর ঠোঁট ফাঁক করে একটা শক্ত বোঁটা মুখের মধ্যে পুরে দিলাম। বিদিশা ওর দেহকে তুলে ধরল আমার মুখের দিকে। আমি ঠোঁট বন্ধ করে চুষতে লাগলাম একটা বোঁটাকে আর অন্য হাত দিয়ে আরেকটা স্তন টিপতে লাগলাম। বিদিশার মুখ দিয়ে শীৎকার বেরিয়ে এলো, ‘আহহহহহ………’
আমি বোঁটাটাকে দাঁত দিয়ে কাটতে কাটতে আরেকটা হাত দিয়ে ওর বুকের নিচে বাঁধা গাউনের দড়িটা খুলে দিলাম ওর গাউনতা দুপাশে ফাঁক করে ফেলে দিলাম বিছানার উপর। বিদিশা এখন সম্পূর্ণ নগ্ন আমার আর চিত্তর চোখের সামনে। চিত্তকে দেখলাম হাঁ করে বিদিশার শরীর গিলছে। বিদিশার পা দুটো বিছানার উপর সোজা করে রাখা আছে, চিত্তর হাত ঠিক যেখান থেকে বিদিশার যৌনকেশ শুরু হয়েছে সেখানে ঘুরপাক খাচ্ছে বিশেষ কোন উদ্দেশ্যে নয়। এমনি এমনি। আমি বিদিশার আরেকটা বোঁটাতে মুখ দিলাম আর চুষতে লাগলাম মনের সুখে।
বিদিশা একটা হাত আমার মাথার পিছনে দিয়ে চেপে ধরল ওর স্তনের উপর। ওর শরীর একটু বেঁকে আমার মুখের উপর চাপা। বিদিশার কাছে আমি আর চিত্ত এখন শূন্য। ওর কাছে এখন সুখ ছাড়া আর কিছুর অস্তিত্ব নেই। আমি হাত দিয়ে চিত্তকে কাছে ডাকলাম। চিত্ত উঠে এলো আর বিদিশার বুকের পাশে বসল। আমি একটা হাত দিয়ে একটা হাত দিয়ে অন্য স্তনটা দেখিয়ে দিলাম আর আমি যা করছি তাই করতে ইশারা করলাম। চিত্ত বুঝল ওকে কি করতে হবে। ও ঝুঁকে আমার লালা মেশানো স্তনের বোঁটা ওর মুখে পুরে চোষা আরম্ভ করলো। দ্বিতীয় আক্রমনে বিদিশা দিশেহারা। ওর মুখ দিয়ে আওয়াজ বেরিয়ে এলো, ‘উফফফফ, মাগো……’
ওর আরেকটা হাত চিত্তর মাথার উপর উঠে গেছে আর ওর মাথাকে চেপে ধরেছে স্তনের উপর। আমরা দুজন মনের সুখে ওর স্তন চুষছি। আমি যা করছি চিত্ত তাই করছে। ওর কাছে এটা সম্পূর্ণ এক নতুন খেলা। এতে ওর বিন্দুমাত্র জ্ঞান নেই। ও এখন আমাকে দেখবে আর আদিম লীলার খেলা শিখবে। ও যে ঠিক শিখছে তা ওর আমাকে অনুসরন করা আর সেই মতো কাজ করা দেখে বুঝছি।
আমি বিদিশাকে তুলে ওর একদিকের গাউন খুলে নিলাম। চিত্ত অন্যদিকটা খুলে দিলো ওর দেহ থেকে। আমি গাউনটা টেনে বার করে নিলাম ওর দেহের থেকে আর আবার শুইয়ে দিলাম বিছানায়। বিদিশা যেন সম্মোহিত। আমরা যা করছি ও চুপচাপ তাই করে যাচ্ছে। ওর আধখোলা চোখে শুধু ওর মনির সাদা অংশ দেখা যাচ্ছে। ওর নিঃশ্বাস বড় বড় করে পড়ছে। নাকের উপর বিন্দু বিন্দু ঘাম।
আমি ওর দুটো হাত মাথার উপর তুলে দিলাম যাতে ওর লোমহীন বাহুমূল প্রকাশ পায়। আমি ওর একটা বগলে চুমু খেলাম, দেখলাম চিত্ত তাই করলো। মনে মনে বললাম, ‘জিও বেটা, যেরকম গুরু সেইরকম চেলা।চুষতে থাকলাম ওর বগল ওর একটু করে দাঁত দিয়ে কাটতে থাকলাম। দুজনের ওই প্রয়াসে বিদিশা কাঁপতে শুরু করেছে। জিভ দিয়ে টেনে টেনে ওর সারা বগল ভিজিয়ে দিলাম। বিদিশা এখন অন্য জগতে কারন ও আমাকে ভেবে চিত্তর মুখ ওর মুখে টেনে নিয়েছে আর চিত্তর ঠোঁট দুটো ওর ঠোঁটে নিয়ে চুষতে লাগলো। আমি হাসলাম মনে মনে। সেক্সে মানুষ কতোটা বোধজ্ঞান হারিয়ে ফেলে। চিত্ত জানে না কি করে চুমু খেটে হয়। আমি চিত্তকে সরিয়ে দিয়ে সংগে সংগে আমার ঠোঁট বিদিশার ঠোঁটের মধ্যে লাগিয়ে দিলাম আর ওর একটা ঠোঁট নিয়ে আরম্ভ করলাম চুষতে। আমার জিভ ওর মুখের মধ্যে ঢুকিয়ে ওর জিভের সাথে খেলা করতে লাগালাম আর কখনো ওর জিভ নিজের মুখের মধ্যে নিয়ে চুষতে লাগলাম। বিদিশা পাগল হয়ে গেছে। ও আমার মাথাকে দুহাতে আঁকড়ে ধরে আমার জিভ ওর মুখে নিয়ে সমানে চুষে যেতে লাগলো। ওর চোখ বন্ধ ঘন ঘন শ্বাস পড়ছে।
চিত্ত ওর দুই স্তন নিয়ে কি করবে ভেবে উঠে পারছে না কখনো এই স্তন কখনো অন্যটা নিয়ে চুষে যাচ্ছে। দুজনের খেলায় বিদিশার শরীর থর থর করে কাঁপছে। আমি ওর মুখ থেকে মুখ সরিয়ে ইশারা করলাম চিত্তকে চুমু খাবার জন্য। চিত্ত স্তন ছেড়ে বিদিশার মুখে এসে ওর মুখ লাগালো। বিদিশার এখন লক্ষ্য করার সময় নেই। ওর এখন ভালো লাগার সময়। তাই ও দেখছে না কে ওকে চুমু খাচ্ছে। ও চিত্তর ঠোঁট দুটো নিয়ে চুষতে লাগলো পাগলের মতো। চিত্তর মুখে জিভ ঢুকিয়ে ওর জিভের সাথে খেলতে আরম্ভ করলো। চিত্ত মজা পেয়ে গেছে। চিত্ত ওর মুখে জিভ ঢুকিয়ে দিয়েছে। বিদিশা ওর জিভ চুষে যেতে লাগলো সমানে।
আমি নিচে নেমে এলাম ওদের ছেড়ে। বিদিশার পেটে চুমু খেয়ে ওর নাভিমুলে এসে জিভ দিয়ে ওর নাভির গভীর পর্যন্ত জিভ ঢুকিয়ে দিলাম। বিদিশা ওর শরীর কাপালো এপাশ ওপাশ। চিত্তকে তখনো ও ছাড়ে নি, ওর সারা মুখে চুমুর বর্ষণ করে যাচ্ছে। আমি আরও নিচে নেমে ওর যৌনকেশে মুখ ঘষতে লাগলাম শব্দ উঠলো খরখর করে। আমি জিভ বোলাতে লাগলাম বিদিশার যোনীর চুলে।
নিজেকে নিয়ে গেলাম বিদিশার দুই পায়ের ফাঁকে। বিদিশা পা দুটো ফাঁক করে আমাকে আরও বেশি জায়গা করে দিলো। নিজের যোনী উঁচু করে দিলো শূন্যে আমার মুখের উদ্দেশ্যে। আমি ওর যোনীর দুই পাশে ঠোঁট দিয়ে চুমু খেতে শুরু করলাম।
বিদিশা উত্তেজিত অবস্থায় মুখ দিয়ে আওয়াজ বেড় করতে লাগলো, ‘ইসসসস, আআহহহহহ……’ আরও কতো কিছু বোঝা গেল না।
বুঝলাম চিত্ত ওর মুখ ছেড়ে নিচে নেমে এসেছে আমি কি করছি দেখতে। আমি বিদিশার দুটো পা হাঁটুর থেকে মুড়ে ভাঁজ করে বিছানার উপর রাখলাম। পা দুটো একটু ফাঁক করে দিলাম। যৌনকেশ ভেদ করে বিদিশার যোনীর কালচে বাদামী পাপড়ি দুটো আর ওর ঈষৎ বাদামী ভগাঙ্কুর বেরিয়ে এলো। বিদিশা ছাড়া আমরা এখন পর্যন্ত কেউ কোন কথা বলি নি, না আমি না চিত্ত। আমি ব্যস্ত ছিলাম বিদিশাকে সুখ দিতে আর চিত্ত ব্যস্ত ছিল আজানাকে আবিষ্কার করতে। এইবার চিত্ত কথা বলল কিন্তু একদম ফিসফিসিয়ে। কারন ও এখন জানে যে জোরে কথা বললে খেলার ছন্দ কেটে যেতে পারে। ও বুঝে গেছে এই খেলায় যে আনন্দ আছে অন্য কোন খেলায় নেই তাই ও জোর নষ্ট করতে নারাজ।
ও জিজ্ঞেস করলো, ‘দাদা, এখন কি করবে?’
আমি ওর মুখের দিকে তাকালাম, দেখলাম এক অনাবিল আনন্দের ছটা ওর মুখে। ওর দাদা ওকে এতো সুযোগ দিয়েছে আর উত্তর দেবে না। আমি একটু হাসলাম আর বললাম, ‘তোর বৌদির এখানে মুখ দিয়ে চাটবো?’
ওর জানার নেশা ওকে কথা বলালো, ‘কিন্তু চাটলে কি হবে?’
আমি ওকে জানালাম, ‘তোর বৌদির আরাম লাগবে। দেখবি আমি এখানে মুখ দিয়ে চাটলে তোর বৌদি কেমন ছটফট করবে। তোর বৌদির খুব আরাম লাগবে।
ও খুব খুশি হয়ে বলল, ‘আর আমি? আমি চাটবো না?’
আমি ওর গায়ে হাত রেখে বললাম, ‘কেন চাটবি না, কিন্তু আগে শেখ কিভাবে চাটতে হয়।
ও আরও আমার মুখের কাছে ওর মুখ নিয়ে এসে ঘন হয়ে বসল আমার পাশে এই খেলার আরেক মুহূর্ত আবিস্কারের জন্য।
আমি হাত দিয়ে বিদিশার যোনী আরও ফাঁক করে দিলাম। আমার হাত লাগতেই বিদিশা ছটফট করে উঠলো পাছা দুলিয়ে। ও জানে ও এখন কি পেটে চলেছে। এই আনন্দ ও যে অনেকদিন না পেয়েছিলো। ও ওর যোনী একটু তুলে ধরল আর আওয়াজ করলো, ‘আরররগগগগ………’
আমি চিত্তকে বললাম, ‘এই দ্যাখ এটা একটা ছোট বরবটির বিচির মতো। এটাতে জিভ দিয়ে ঘষলে তোর বৌদির অবস্থা কি হয় দেখবি।বলে আমি বিদিশার ভগাঙ্কুরে জিভ ঠেকালাম আর ঘষতে শুরু করলাম। বিদিশা প্রায় চিৎকার করে উঠলো, ‘উফফফফ মাগো………’ কোমরটা শূন্যে তুলে দিলো।
চিত্ত ওর বৌদির দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করলো, ‘দাদা বৌদি এমন করছে কেন?’
আমি বললাম, ‘বৌদির আরাম লাগছে।জিভ দিয়ে ওর ভগাঙ্কুর নাড়তে থাকলাম বেশ কিছুক্ষণ যাতে চিত্ত শিখতে পারে। আমি জানি বিদিশার রস গড়াচ্ছে, কিন্তু এই মুহূর্তে চিত্ত এইটা শিখুক। তারপ্র চিত্তকে বললাম, ‘দ্যাখ এই বিচিটা ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরে এর গায়ে জিভ বোলালে আরও আরাম পাবে বৌদি।
আমি বিদিশার বেরিয়ে থাকা ভগাঙ্কুর দুই ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে জিভ বোলাতে লাগলাম। বিদিশা ওর পাছা দিয়ে আমার মুখে ওর যোনী ঠেসে ধরল, শীৎকার করে উঠলো, ‘হ্যাঁ চষো আমাকে, আমার সব রস নিংড়ে নাও। মেরে ফেলো আমাকে।
চিত্ত আমার কানে বলল, ‘দাদা বৌদি মেরে ফেলার কথা বলছে।
আমি একটু হেসে বললাম, ‘ও খুশীতে বলছে।চিত্ত আবার বিদিশার দিকে তাকালো।
আমি ওকে দেখালাম, ‘এই দ্যাখ এইগুলোকে পাপড়ি বলে এই যে কালচে বাদামী লতপত করছে এখানে এইগুলো।বলে আমি আঙুল দিয়ে ওর পাপড়ি গুলোকে একটু টেনে ধরলাম। জিজ্ঞেস করলাম, ‘দেখেছিস?’
চিত্ত ঘাড় নাড়ল। আমি বললাম, ‘এই দুটোর উপর জিভ বোলালেও বৌদি আরাম পাবে। এই দুটোকে মুখের মধ্যে নিয়ে যেমন ভাবে আমসত্ত্ব চষে ওরকম ভাবে চুষলে তোর বৌদি আর ঠিক থাকতে পারবে না। চুষেছিস আমসত্ত্ব।
চিত্ত ঘাড় নেড়ে বলল, ‘হ্যাঁ, মামি দিয়েছিল।
আমি বললাম, ‘এইবার দ্যাখ।বলে আমি বিদিশার পাপড়ি দুটো ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে চুষতে লাগলাম আর বিদিশাকে ধরে রাখে কে। বিদিশা এমনভাবে ওর পাছা আমার মুখে থাপাতে লাগলো যে পাপড়ি গুলোকে মুখে ধরে রাখা মুশকিল। তবু আমি ওর পাছার তলায় হাত দিয়ে ওর নড়াচড়া কম করতে চেষ্টা করলাম। বিদিশার গলা দিয়ে ঘরঘর শব্দ বেরোচ্ছে। পেট খুব তাড়াতাড়ি ওঠানামা করছে ছোট ছোট নিঃশ্বাসের তালে তালে। কিন্তু এই খুশি আমি বেশি নিতে চাই না এটা আমি চিত্তর জন্য রেখে দিলাম। আমি জানি বিদিশার খুব রস গড়াচ্ছে সেটা চিত্তকে দেখাতে হবে। আমি ওকে বললাম, ‘এদিকে আয় তোকে একটা জিনিস দেখাই। (চলবে)


No comments:

Post a Comment