দুষ্টুমি কাকে বলে! 1

আম্মুউউউ……’ সুহান এক দৌড়ে রান্নাঘরে ঢুকে তার মাকে জড়িয়ে ধরে।
এই ছাড়, ছাড়সুহানের মা ছেলের হাত থেকে ছাড়া পাবার ব্যার্থ চেষ্টা করে বলেন।

হি হি ছাড়বো না! জানো মা আমি না একটুর জন্য সেকেন্ড হতে পারলাম না, ঐ রহিমটা না কিচ্ছু পারে না, আমাকে ফার্স্ট বানিয়েই ছাড়লো হতচ্ছাড়া।এক নিশ্বাসে কথাগুলো বলে শেষ করে সুহান।
ইশ! এত বড় হয়েছিস, তাও তোর ছেলেমানুষি গেল না। ফার্স্ট হয়েছিস এটাতো আরো ভালো, বোকা ছেলেতরকারীটায় ঢাকনা দিয়ে বুয়াকে দেখতে বলে সুহানের মা ছেলের দিকে স্মিত হেসে তাকান।
কই আর বড় হলাম, তুমি তো এখনো আমি একা একা বাইরে গেলে ভয় পাওসুহান একটা কৃত্রিম দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলে।
পারিসও তুই, সব কিছুর জন্য কথা রেডি। এখন যা তাড়াতাড়ি গোসল করে ফ্রেশ হয়ে নে, দুপুরের খাবার এক্ষুনি হয়ে যাবে।সুহানের মা ওকে ঠেলে দিয়ে বলেন।
যাচ্ছি মাবলে মায়ের গালে একটা চুমু দিয়ে দৌড় দেয় সুহান।
সুহানের যাবার পথের দিকে কিছুক্ষন হাস্যোজ্জ্বল মুখে তাকিয়ে থেকে ওর মা ভাবেন তার ষোল বছরের ছেলেটি আজও যেন ঠিক সেই ছোটটিই রয়ে গিয়েছে, এখনো কত দুষ্টু।
সুহান ওর বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে। ওরা থাকে চট্টগ্রামে, তার দাদার আমলের বিশাল এক জমিদার বাড়িতে। জমিদারী উঠে গিয়েছে বহু আগেই। তবে সুহানের বাবা, সুহান গ্রুপ অফ ইন্ড্রাস্টিজের এম.ডি. আজমল সাহেব আজও তার বংশের আভিজাত্য বজায় রেখেছেন। তাই ঢাকায় তার বাড়ির অভাব না থাকলেও ছেলেকে নিজের পৈত্রিক বাড়িতে রেখে মানুষ করছেন। বাবা মায়ের একমাত্র ছেলে হলে যা হয়, সুহানকে সবাই মাথায় তুলে রেখে বড় করেছে। তবে দুস্টুমি দিয়ে সবাইকে সবসময় তটস্থ করে রাখলেও বুদ্ধিতে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিতেও কার্পন্য করেনি সে। তাই এই বছর ক্লাস নাইনে উঠেও যেন সে তার মায়ের কাছে আজও ছোট। মায়ের সাথে দুপুরের খাবার খেতে বসে খাবারের উপর যেন হামলে পড়লো সে। স্কুলে রেজাল্ট আনতে গিয়ে বন্ধুদের সাথে একচোট ফুটবল খেলে এসেছে। তাই ক্ষুধায় সে আইঢাই করছিলো।
ধুর বোকা ছেলে এভাবে খায় মানুষ?’ সুহানের মা বলে উঠেন।
মমমখায় তো, স্টেশনের কুলিরা খায়সুহান ভাত মুখে নিয়ে বলে।
হ্যা বেশ এক কুলি হয়েছিস! সে যাক গে, তোর ছোট খালা ফোন দিয়েছিলো। রিনিতার পরীক্ষা শেষ, তাই কাল আমাদের এখানে আসছে কয়েকদিনের জন্য বেড়াতে, রিনির কথা মনে আছে না তোর?’
সুহানের হাত থেকে মুরগীর রানটা পড়ে যায়। সে মায়ের দিকে হা করে তাকিয়ে থাকে। সুহানের মা ওর এ অবস্থা দেখে মৃদু হাসেন।
কিরে রিনি আসবে শুনে এমন হা হয়ে গেলি কেন, ছোটকালে তোরা দুটিতে মিলে যা করতি না! তোরা একসাথে হলে আমাদের বাসায় থাকাই দায় হয়ে যেত, দুই মিনিট পরপর ঝগড়া
সুহান মুখের হা বন্ধ করে ভাতের দিকে একবার তাকিয়ে তারপর আবার মায়ের দিকে তাকায়।
যাক, আমার এবারের ছুটিটার বারোটা বাজানোর ব্যাবস্থা তাহলে করেই ফেললেসে একটা শ্বাস ফেলে বলে।
কেন?’ সুহানের মা অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করেন।
সেটাও আবার বলে দিতে হবে? রিনির জ্বালাতনে কি টেকা যায়?’
সুহানের কথা শুনে ওর মা আবার হেসে ফেলেন। ওরে বোকা ছেলে রিনি কি আর সেই ছোট্ট দুস্টু মেয়েটি আছে রে? সেবার তো আমার সাথে ঢাকায় গেলি না, গেলে দেখতি কি সুন্দর হয়েছে রিনি, আর সেই দুস্টুমিও যেন কোথাও উড়ে গিয়েছে, অনেক লক্ষী হয়ে গিয়েছে মেয়েটা। দেখিস এবার তোর ছুটিটা দারুন কাটবে
তা তো বটেই! হাহ! রিনি লক্ষী হলে তো হয়েছিলই…’ সুহান ফোড়ন কাটে।
যাহ! এস বলিস না, রিনি কত ভালো মেয়ে, ও আসলেই দেখিস
তা তো দেখবোই, যত্তসবসুহান রাগে গজগজ করতে করতে ভাতের দিকে নজর ফেরায়।
সুহানের মা তো আর জানতেন না যে ওনার চেয়ে সুহানই রিনিতাকে ভালো চিনত।
***
সুহানদের বাড়ির বিশাল ড্রাইভওয়েতে একটা মাইক্রোবাস এসে থামলো। সামনের দরজা খুলে ড্রাইভার বের হয়ে এসে পিছনের দরজাটা খুলে দিল। তারপর গাড়ীর পেছন থেকে রিনিতার ব্যাগ নামাতে লাগলো। বাড়ীর প্রধান ফটকে সুহান আর ওর মা দাঁড়িয়ে ছিলেন। খোলা দরজাটা দিয়ে প্রথমে বের হয়ে এল একজোড়া ফর্সা, মসৃন পা, তারপর সে পায়ের মালিক। সুহান হা করে তাকিয়ে ছিল। মিডিয়াম লেংথ এর স্কার্ট আর হাতকাটা টাইট টপ পড়া ষোড়শী রিনিতাকে নামতে দেখে সুহানের মাও কেমন উসখুশ করে উঠলেন। তিনি বরাবরই রক্ষনশীল ধরনের মহিলা; এখনকার দিনের মেয়েদের এসব সাজগোজ তিনি বরদাস্ত করতে পারেন না। তবে রিনিতাকে তিনি কিছুই বললেন না। রিনিতা মাইক্রো থেকে নেমেই খালাকে দেখে একছুটে দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরলো।
কেমন আছ খালা? তোমাকে অনেক মিস করি আমি।রিনিতা বলে উঠলো।
এই তো আছি। তুইতো অনেকদিন পরে এলি, কি সুন্দরী হয়েছিস!সুহানের মা রিনিতার মুখখনি ধরে তাকিয়ে বললেন।
কি যে বলনা তুমি খালা!রিনিতা একটু লাল হয়ে বলে।
সুহান তখন অবাক হয়ে রিনিতাকে দেখছিল; কি থেকে কি হয়ে গিয়েছে সে! ইরানী রাজকুমারীর মত মুখখানি তার, লম্বা মসৃন পা, কোমড় পর্যন্ত লম্বা চুল, চিকন কটি আরওর বুকের কাছটা। খালার সাথে কুশল বিনিময় করেই রিনিতা ফিরল সুহানের দিকে। ওর সাথে চোখাচোখি হতেই রিনির মুখে তার ছোটকালের সেই বিখ্যাত, সুহানের পিত্তি জ্বালানো হাসি ফুটে উঠল। সুহানেরও সেই মহা শয়তান রিনির কথা মনে পড়ে গেল। তাই আপনাআপনি তার জিভ বের হয়ে এল। রিনিতাও তার টুকটুকে লাল জিহবা বের করে সুহানকে পাল্টা ভেংচি কেটে দিল।
এইরে, এসেই শুরু করে দিলি? তোরা কি আর বড় হবি না?’ সুহানের মা ওদের কৃত্রিম ধমক দেন।
আমার কি দোষ খালা, ওই তো আগে করেছে।রিনিতা নিরীহ ভঙ্গিতে বলে আবার সুহানের দিকে ফেরে। তারপর তোর খবর কি? এখনো কি কুকুর দেখলে দৌড় দিস?’
খবর তো এতক্ষন ভালোই ছিল, তবে এখন ভালো নেই।সুহান কটমট চোখে রিনিতার দিকে তাকিয়ে বলে।
ধ্যাত এসেই ঝগড়া শুরু, চল চল ভেতরে চলবলে সুহানের মা রিনিতাকে ধরে ঘরের দিকে নিয়ে চলেন। সুহান রিনিতার দিকে তাকিয়ে আরো একবার ভেংচি কেটে তার রুমের দিকে চলে গেল।
***
সুহান তার বিছানায় শুয়ে একটা গল্পের বই পড়ছিল, এমন সময় হাল্কা পায়ের শব্দে একটু সচকিত হয়ে উঠল। রিনিতা এসে ওর রুমে ঢুকল, স্কার্টটা বদলে ও একটা ট্রাউজার আর কামিজ পড়ে এসেছে।
কিরে তুই আবার বইয়ের পোকা হলি কবে থেকে রে?’ রিনিতা জিজ্ঞাসা করে।
যবে থেকেই হয়েছি তাতে তোর কি?’ সুহান একটু কড়া ভাবেই জবাব দেয়; গল্পের বই পড়ার সময় কেউ ডিস্টার্ব করলে ওর খুব বিরক্ত লাগে।
বারে, আমি এতদিন পর এলাম আর তুই আমার সাথে এমন ব্যবহার করছিস?’ রিনিতা আহত হবার ভান করে বলে।
হুহ, তাতে আমার বয়েই গেছে
হুম…’ রিনি বিছানার কাছে এগিয়ে আসে, তারপর সুহান কিছু বুঝার আগেই ওর মাথায় জোরে একটা চাটি মেরে দৌড় দিল ও।
ধ্যাত…’ সুহান হাত বাড়িয়ে ওকে ধরার চেষ্টা করে ব্যার্থ হলো। বইটা ফেলে ওকে ধাওয়া করে পিছু পিছু গিয়ে দেখে ওর মায়ের কাছে গিয়ে বসে পড়েছে রিনিতা। অতগ্য সুহান আবার ওর রুমের দিকে ফিরল; রিনি কিন্ত ঠিকই সুহানের মাকে লুকিয়ে ওকে ভেংচি কেটে দিল।
প্রায় সারাদিন ধরেই চলল রিনিতার জ্বালাতন। ওর কাজকর্মে বিরক্ত হয়ে সুহান ঠিক করল ও আর রিনিতার সাথে কথাই বলবে না। সন্ধ্যায়, রাতে বেশ কয়েকবারই রিনিতার সাথে দেখা হলো ওর, কিন্তু ওকে পাত্তাই দিল না সুহান। সুহানের এই বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখে রিনিতাও একটু ঠান্ডা হয়ে এল।
***
পরদিন সকালে সুহান তাদের বাগানের পায়চারি করছিল। বাগানের এই কোনটায় বেশ সুন্দর কয়েকটা ফুল ফুটেছে। সুহানদের মালি ছুটিতে, নাহলে ডেকে এগুলোর নাম জিজ্ঞাসা করত সে। এমন সময় রিনিতা এসে বাগানে ঢুকল। ব্যাগী জিন্স আর গেঞ্জীতে ওকে দারুন লাগছিলো। ওকে দেখেই সুহান উল্টো দিকে হাটা ধরলো। কিন্তু রিনিতা এসে ওকে ধরে ফেলল।
কিরে সুহান, তুই আমার উপর রাগ করেছিস?’
না, খুশি হয়েছি।সুহান মুখ ঝামটা দিয়ে বলে।
অ্যা হ্যাসুহান আমার উপর রাগ করেছে।বলে কান্নার ভান করে রিনিতা। তুই আমার ছোটকালের বন্ধু তোর সাথে একটু মজা করেছি তাতেই এই…’ রিনিতা চোখ মুছতে মুছতে বলে।
সুহান তাও ওকে পাত্তা দিল না। তাই রিনিতা সুহানকে ধরে হঠাৎ করে নিজের দিকে ফেরায়।
আচ্ছা সুহান, আমি কি দেখতে এতই খারাপ? বল…’ রিনিতা সুহানের মুখ নিজের দিকে টেনে আনে।
রিনিতার আয়ত চোখের দিকে তাকিয়ে সুহান একটু অপ্রস্তুত হয়ে পড়ে। অ্যাহ্যাএম…’
বল সুহান?’ রিনিতা তার মুখখানি আরো কাছে এগিয়ে আনে, ওর গরম নিশ্বাস অনুভব করে সুহান, সাথে কেমন একটা মিস্টি গন্ধ। আমাকে ভালো লাগে না রে তোর?’ রিনিতা আবার বলে। আগের মত চুমু খেতে ইচ্ছে হয় না?’
রিনিতার পাতলা গোলাপী ঠোট দুটি রসালো কমলালেবুর কোয়ার মত লাগছিল সুহানের কাছে। আর সব কিছু ভুলে গিয়ে চোখ বন্ধ করে কিসের যেন এক অদৃশ্য টানে সুহান তার ঠোট এগিয়ে নেয় রিনিরটা স্পর্শ করার জন্য। কিন্তু রিনির নরম ঠোটের ছোয়ার বদলে পেটের মধ্যে রামচিমটির সুতীক্ষ্ণ ব্যাথা অনুভব করল সুহান। রিনিতা ওর পেটে চিমটি দিয়েই দৌড় দিয়েছে, সুহান ওর পিছে ছুটল। রিনিতা দৌড়াতে দৌড়াতে পিছনবাড়ির একটা রুমে ঢুকেই বুঝতে পারলো, ওটার অন্যদিকে কোন দরজা নেই। দরজা দিয়ে ঢুকে রিনিতার কোনঠাসা অবস্থা দেখে সুহানের ওদের ছোটকালের দুস্টুমিগুলোর কথা মনে পড়ে গেল। সেও রিনিতার মত তার সেই দুস্টুমি মুডঅন করল; বাংলা সিনেমার ভিলেনের মত চেহারার ভাব করে পিছু হঠতে থাকা রিনিতার দিকে এগিয়ে গেল সে।
এবার কোথায় যাবি সুন্দরী, একলা ঘরে শুধু তুই আর আমিসুহানের মুখে শয়তানী হাসিটা লেগে রয়েছে।
খুব ভয় পাওয়ার ভান করলেও রিনিতা আসলে মজা পাচ্ছিল, সে কাঁদো কাঁদো ভাব করে পিছু হঠতে হটতে দেয়ালের সাথে লেগে গেল। সুহান দুই হাত দিয়ে ওর কাধ চেপে ধরতে সে মুখ পাশে সরিয়ে নিল, এবার একটু ভয় পেয়ে। না না প্লিজ সুহান, তুই…’
ছোটকালে সুহানকে নানাভাবে জ্বালাতো রিনিতা। সুহান ওকে কিল ঘুষি যাই মারার চেষ্টা করত তাতে রিনিতার কোন সমস্যা ছিল না, তবে সুহানের জানা একটা জিনিসই ছিল রিনিতাকে টাইট করার। সেটা হল
চপাৎ!!সুহান রিনিতাকে দেয়ালে চেপে ধরে ওর ঠোট ভিজিয়ে একটা চুমু খেয়ে দিল। রিনিতা প্রানপন চেষ্টা করেও ওকে থামাতে পারলনা। চুমু খেয়েই দৌড় দিল সুহান। রিনিতাও ওর পিছে ছুট দিল, কিন্তু ওকে ধরার আগেই সুহান তার রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দিল। রিনিতা রাগে লাল হয়ে ফুসতে ফুসতে গেস্ট রুমের দিকে এগুলো। দাড়া তোর বারোটা বাজাচ্ছি!  রিনিতা হাত দিয়ে ওর ভিজে ঠোট মুছে নিলো।
***
সারাটা সকাল নিজের রুমে ইন্টারনেটে পড়ে থেকে একেবারে ঠিক দুপুরের খাবারের সময় রুম থেকে বের হলো সুহান। ওদের লম্বা ডাইনিং টেবিলে ওর মা আর রিনিতা বসে ছিল। ও ওদের সাথে যোগ দিল। রিনিতা চোখ তুলে ওর দিকে কটমট করে তাকালো। সুহানের কাছে সেটা আসন্ন ঝঞ্ঝার অশনী সংকেত বলে মনে হলো। না জানি কি শয়তানী বুদ্ধি এটেছে দুস্টুটা। সুহানের মা খেতে খেতে ওর দিকে ফিরে তাকালেন।
শোন তোরা, খেয়েদেয়ে আমি একটু এনজিওতে যাবো, কয়েকজন মহিলা তাদের ঋন পরিশোধ নিয়ে কি যেন সমস্যায় পড়েছে। ফিরতে রাত হবে।
কেন খালা, তোমার এনজিও এ আর কেউ নেই যে তোমাকেই যেতে হবে?’ রিনিতার খালার দিকে ফিরে সুধায়।
ওরে, আমি ডিরেক্টর বলেই কি ঘরে মুখ গুজে পড়ে থাকলে হবে? আমাকে ছাড়া ওদের এক মুহুর্তও যেন চলে না। যাই হোক, তোরা আবার গোলমাল করিসনি যেন। এখনো তো আর বড় হলি না তোরা
না, না, খালা চিন্তা করোনা। আমরা কিচ্ছুটি করব নারিনিতা সুহানের দিকে তাকিয়ে তার ট্রেডমার্ক শয়তানী হাসিটা হেসে বলে।
তা তো বটেইসুহান বির বির করে বলে।
খাওয়া শেষ করে সুহান আবার তার রুমে চলে গেল। একটু পরেই সুহানের মা রেডি হয়ে তাদের পাজেরোটা নিয়ে এনজিওয়ের দিকে চলে গেলেন। কিছুক্ষন একটা নতুন মুভি দেখলো সুহান। একটু দেখে ওর আর ভালো লাগছিলো না। তাই সে তার রুম থেকে বের হয়ে এল। সুহানের রুমটা দোতলায়। রুম থেকে বের হয়েই বিশাল বারান্দা। রেলিংয়ে হাত দিয়ে একটু দূরে বিশাল মাঠের দিকে উদাস হয়ে তাকালো সুহান। ওর ভাবনার জাল ছিড়ল পাছায় সুতীক্ষ্ণ একটা ব্যাথায়। সাথে সাথে তড়িৎ গতিতে পিছনে ফিরল সে। রিনিতা পালিয়ে যাওয়ার আগে ওর সুডৌল পাছাতেও জোরে একটা চাপড় দিয়ে দিতে সক্ষম হলো সে। রিনিতা ব্যাথায় উহ!করে উঠলো।
সুহানের আওতা থেকে দূরে সরে গিয়ে ভাবনার অবকাশ পেয়ে একটা অদ্ভুত চিন্তা মাথায় এলো রিনিতার। সুহানের চাপরে ব্যাথা পেলেও, কেমন অদ্ভুত একটা অনুভুতি ছড়িয়ে পড়েছে ওর নিতম্ব দিয়ে। ও তাড়াতাড়ি মাথা থেকে এ চিন্তা ঝেড়ে ফেলে কিভাবে এর প্রতিশোধ নেয়া যায় তার পায়তারা করতে লাগল। সুহানের আরো একটা দূর্বলতার কথা মনে হতেই ওর মুখের শয়তানি হাসিটা আবার ফিরে এলো।
ওদিকে সুহানও নিতম্বে রিনিতার নরম হাতের চাপরের অদ্ভুত অনুভুতিতে একটু অন্যমনষ্ক হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু এবার বিপদ এলো অন্য দিক থেকে। সুহান কিছু বুঝার আগেই ওর পিছন থেকে দুটো নরম হাত এসে থ্রি কোয়ার্টার প্যান্টের উপর দিয়ে ওর নুনুটায় জোরে একটা চাপ দিয়ে দিল। সুহান এবার রাগে অগ্নিশর্মা হয়ে রিনিতার পিছে দৌড় লাগালো। রিনিতা দ্রুত সিড়ি দিয়ে নেমে গোলা ঘরের দিকে এগুলো লুকানোর জন্য। কিন্তু সুহানও কম যায় না। রিনিতা সুহানদের বিশাল গোলা ঘরের দরজা দিয়ে ঢুকতে না ঢুকতেই সে ওকে ধরে ফেলল। এখানে সুহানদের বিশাল গোয়ালের জন্য এখনো খড় জমিয়ে রাখা হয়। তাই যত্রতত্র ছড়ানো খড়। সকালে একবার খড় নেয়ার জন্য ছাড়া সচরাচর কেউ আসে না এদিকে।
এবার কোথায় যাবে সোনামনি? আমার সাথে মামদোবাজি?’ সুহান রিনিতার দুই হাত চেপে ধরে বলে।
রিনিতা সুহানের হাত থেকে ছাড়া পাওয়ার জন্য ধ্বস্তাধস্তি করতে লাগলো। তবে তার মুখে একটা মুচকি হাসি। এই ছাড়, ছাড় আমাকে…’
এহ! একবার ধরলে কি আর ছাড়ি তোকে?’ সুহান রিনিতার সাথে ধ্বস্তাধ্বস্তি করতে করতে হঠাৎ ওর হাত পড়ে যায় রিনিতার গেঞ্জিতে ওর একটা স্তনের উপর। সাথে সাথে সুহানের দেহ দিয়ে কেমন একটা শিহরন বয়ে গেল। এই প্রথম সুহান একটা মেয়ের নরম স্তন স্পর্শ করলো। সে তাই আবার ওটায় চাপ দিতেই রিনিতা হঠাৎ ধ্বস্তাধ্বস্তি থামিয়ে দিল। তারপর আবার দ্বিগুন বেগে ওর কাছ থেকে ছাড়া পাওয়ার চেষ্টা করতে লাগল।
এই সুহান, কি করছিস? ছাড় বলছি? প্লিজ…’
রিনিতার এই কাতর স্বর শুনে মজা পেয়ে সুহান অন্যহাত দিয়ে রিনিতার আরেকটা স্তনও গেঞ্জির উপর দিয়ে চেপে ধরল। ওর দারুন লাগছিলো, ওর নুনুটা কেন যেন শক্ত হয়ে যেতে লাগল। দুই হাত ছাড়া পেয়ে রিনিতা আর এক সেকেন্ডও নষ্ট করল না। কোনমতে হাতটা নিচে নামিয়ে একটানে সুহানের থ্রী-কোয়ার্টার প্যান্ট এর ফিতা খুলে ওটা অনেকখানি নামিয়ে দিল। রিনিতার এই আকস্মিক কাজে হতবিহ্বল হয়ে কিছুক্ষনের জন্য রিনিতার স্তন ছেড়ে দিল সে। প্যান্টের নিচে তার কিছুই ছিলো না। রিনিতার স্তন স্পর্শ করে শক্ত হয়ে যাওয়া ওর নুনুটা গেঞ্জীর নিচ দিয়ে রিনিতার চোখের সামনে উকি দিচ্ছিলো; ও খিলখিল করে হাসতে হাসতে দৌড় দিল বিশাল গোলা ঘরটার পিছনের দরজার দিকে। সুহান দ্রুত প্যান্টটা তুলে নিয়ে রিনিতার পিছে ছুটল। রাগে চলন্ত ট্রেনের মত ছুটে আসা সুহানের সাথে এবারও রিনিতা পারলো না। সে গোলাঘরের পিছনের দরজার কাছে পৌছানোর আগেই ওর গেঞ্জির হাতা ধরে ফেলল সুহান। সে এবার রিনিতার গেঞ্জি ধরে টানাটানি শুরু করে দিলো।
দাড়া আজ তোকে নেংটু করে ছাড়বসুহান রিনিতার সাথে ঘষটা-ঘষটি করতে করতে বলে। ওদের ছোটকালের হিসেবে, কাউকে নেংটুকরে দেয়া ছিল তার চূড়ান্ত অপমান। রিনিতা অবশ্য সুহানের সাথে যে খুব ভয়ের সাথে ধ্বস্তাধ্বস্তি করছিল তাও নয়। সেও সুহানের প্যান্টটা আবার টেনে খুলার চেষ্টা করতে করতে খিলখিল করে হাসছিল। এভাবে কিছুক্ষন চেষ্টার পর সফল হলো সুহান। রিনিতার মাথার উপর দিয়ে টেনে খুলে ফেলল গেঞ্জিটা। নিচে রিনিতার ছোট্ট কালো ব্রাটা ওর মাঝারী সুডৌল স্তনের সামান্যই ঢাকতে পেরেছিল। তা দেখে দুস্টুমির মুডে থাকা সুহান কেমন একটা উত্তেজনাও বোধ করল।
ওমা! কি সুন্দর সুন্দর দুধ হয়েছে তোর!রিনিতার একটা দুধে হাত দিয়ে বলে উঠল সুহান, এদিকে এর উত্তেজনায় রিনিতাও যে আবার ওর প্যান্ট খুলে ফেলেছে সেটা খেয়াল হলো না।
এইযাহ! কি করছিস?’ রিনিতা লজ্জার ভান করে বলে।
উমদেখছিকি মজার…’ বলে রিনিতার ব্রাটা খুলে ওর গাঢ় গোলাপী বোটার স্তন দুখানি উন্মুক্ত করে দিল সুহান। দুজনের ধ্বস্তাধ্বস্তি একটু কমে এসেছে।
রিনিতার নগ্ন দুধগুলো হাত দিয়ে চেপে ধরে দারুন অনুভুতি হল সুহানের।
কি দারুন, আমি এখন এগুলো খাবো
তোকে খেতে দিচ্ছে কে?’ বলে রিনিতা সুহানের শক্ত নুনুটা হাত দিয়ে জোরে চেপে ধরল। এতক্ষনে সুহানের খেয়াল হলো যে তার প্যান্ট খোলা।
এই এইছাড়উহ ব্যাথা পাচ্ছি তোসুহান রিনিতার স্তনে হাত রেখেই বলে। সুহানের কথায় ছেড়ে দেয়া তো দুরের কথা, রিনিতার তার অন্য হাত দিয়ে পিছনে সুহানের পাছায় খামচে ধরল। সুহান অবাক হয়ে টের পেল রিনিতার এই আক্রমনে তার ব্যাথার চেয়ে কেমন অদ্ভুত একটা সুখের অনুভুতিই হচ্ছিল। আর রিনিতার স্তন টিপে টিপে সে নিজের অজান্তে ওকেও উত্তেজিত করে তুলছিল।
আআআআহহহছাড়বউহহহযদি তুইওহহহআমার দুধ দুটো ছাড়িস…’ রিনিতা কোনমতে বলে উঠে।
এএএহহ! আর ছেড়েছি!বলে আরো জোরে জোরে সুহান রিনিতার স্তন টিপতে শুরু করলো।
তাহলে আমিও ছাড়বো নাবলে রিনিতাও সুহানের নুনু আর পাছায় হাত দিয়ে পুর্নোদ্দমে চাপ দিতে লাগল। দুজনেই এতে এতটা উত্তেজিত হয়ে উঠেছিল যে বলার মত নয়। বিশেষ করে রিনিতার সুখের শিৎকারে গোলাঘর সরগরম হয়ে উঠেছিল।
সুহান রিনিতার ফর্সা লাল স্তনগুলো টিপতে টিপতে একটায় হঠাৎ মুখ নামিয়ে আনতে গেলেই রিনিতা সুহানের পাছা থেকে হাত সরিয়ে ধরে ফেলল।
এইউহহখবরদারআমার দুধে মুখওওএহহদিবি না…’
পারলে থামা দেখি…’ বলে জোরে রিনিতাকে চেপে ধরে ওর দুধে ঠোট লাগালো সুহান।
সুহানের নরম ঠোট রিনিতার দুধে স্পর্শ করতেই ও চিৎকার দিয়ে উঠল; ওর মনে হচ্ছিল যেন সুহানের ঠোট দিয়ে ওর দেহে বিদ্যুৎ বয়ে যাচ্ছে। সুহান রিনিতার বোটাকে ঘিরে ওর জিহবা দিয়ে যেন বৃত্ত একে দিতে লাগল। আর অন্য দুধটায় হাত দিয়ে জোরে জোরে টিপতে লাগল। এবার একই সাথে হাত দিয়ে রিনিতার একটা দুধের বোটা আঙ্গুল দিয়ে আলতো করে চেপে ধরে অন্য দুধের বোটাটি নিজের ঠোট দিয়ে চেপে ধরল সুহান। রিনিতা মাআআগোওওবলে চিৎকার দিয়ে উঠল; সে তখন ফারহানের নুনুটা হাত দিয়ে জোরে জোরে আদর করে দিচ্ছিলো। রিনিতার নরম হাতের মধ্যে ফারহানের নুনুটা যেন লাফাচ্ছিলো। দুজনেই প্রচন্ড উত্তেজিত, তার মাঝেও কি আর একজন আরেকজনের সাথে ফাইজলামি করতে ছাড়ে? রিনি অসাধারন মজা পাচ্ছিলো, সে বুঝতে পেরেছিলো যে সুহানও তার দুধ টিপে আর খেয়ে বেশ মজা পাচ্ছে। তাই সে সুহানকে যন্ত্রনা দেয়ার জন্য একহাত ওর নুনুতে রেখেই অন্যহাত দিয়ে ওর মুখটা ঠেলে তার দুধ থেকে উঠিয়ে আনল।
ইশ! কি মজা তোর, না? একলা একটা মেয়েকে পেয়ে ফ্রিতে ফ্রিতে তার দুধ খেয়ে নিচ্ছিস?’ রিনিতা ওকে টিটকারী দেয়।
কেন তুইও তো আমার নুনু ফ্রিতে ধরে নিচ্ছিস। তোর দুধ তো আমি খাবইউমকি মজা…’ বলে এবার সুহান রিনিতার অন্য দুধটায় মুখ নামিয়ে আনে। রিনিতা বাধা দেয়ার আগেই ওর একটা দুধ প্রায় পুরোটা মুখে পুরে সুহান ওর বোটায় জিহবা দিয়ে খেলা করতে লাগল। রিনিতা পাগলপ্রায় হয়ে আবার সুহানের নুনু আর পাছায় চাপ দিতে লাগল। সুহান রিনিতার বোটায় হাল্কা করে দাতের ছোয়া দিয়ে ওকে আরো জংলী করে তুলল। সুহানের পরনে ছিল শুধু ওর শার্টটা। (চলবে)


No comments:

Post a Comment